কলকাতা: বাংলায় একদিনে বাড়ল সুস্থ হয়ে উঠার হার৷ একদিনে রাজ্যে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন ১ হাজার ৬১৫ জন৷ তবে একদিনে মৃতের সংখ্যাও বেড়েছে৷ গত ২৪ ঘন্টায় বাংলায় মৃত্যু হয়েছে ৩৯ জনের৷ এর মধ্যে কলকাতারই ১৫ জন৷ তবে একদিনে টেস্ট ১৪ হাজার ছাড়িয়েছে৷ বুধবার রাজ্য স্বাস্থ্য ভবনের বুলেটিনের তথ্য অনুযায়ী, একদিনে আক্রান্তের সংখ্যা ২ হাজার ২৯১ জন৷

গতকাল মঙ্গলবার এই সংখ্যাটা ছিল ২ হাজার ২৬১ জনে৷ কিন্তু এই পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা পৌঁছে গেল ৪৯ হাজার ৩২১ জনে৷ অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা ১৮ হাজার ৪৫০ জন৷ গতকাল ছিল ১৭ হাজার ৮১৩ জন৷ একদিনে বেড়েছে ৬৩৭ জন৷ যদিও একদিনে ১,৬১৫ জন সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন৷

এই পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২৯ হাজার ৬৫০ জন৷ গতকাল মঙ্গলবার ছিল ২৮ হাজার ৩৫ জনে৷ শতাংশের হিসেবে যা ছিল ৫৯.৬১ শতাংশ৷ বুধবারের তথ্য অনুযায়ী সুস্থ হয়ে উঠার হার বেড়ে হয়েছে ৬০.১১ শতাংশ৷ গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৩৯ জন৷ এটা একদিনে সর্বোচ্চ মৃতের সংখ্যা বাংলায়৷

গতকাল সংখ্যাটা ছিল ৩৫ জনের৷ এই পর্যন্ত মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১ হাজার ২২১ জন৷ গতকাল মোট সংখ্যাটা ছিল ১ হাজার ১৮২ জনে৷ যে ৩৯ জনের মৃত্যু হয়েছে, এদের মধ্যে কলকাতারই ১৫ জন৷ উত্তর ২৪ পরগনার ১১ জন৷ দক্ষিণ ২৪ পরগনার ৩ জন৷ হাওড়া ২ জন৷ হুগলির ৩ জন৷ পশ্চিম বর্ধমানের ১ জন৷ পূর্ব মেদিনীপুর ১ জন৷ দক্ষিণ দিনাজপুর ১ জন৷ উত্তর দিনাজপুর ১ জন৷ দার্জিলিং ১ জন৷

গতকাল মঙ্গলবার মৃতের সংখ্যাটা ছিল ৩৫ জনে৷ তাদের মধ্যে কলকাতারই ছিল ১৬ জন৷ উত্তর ২৪ পরগনার ৮ জন৷ দক্ষিণ ২৪ পরগনার ৩ জন৷ হাওড়া ৭ জন৷ জলপাইগুড়ি ১ জন৷ অন্যদিকে বাড়ানো হল পরীক্ষাও৷ বুধবারের তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘন্টায় ১৪ হাজার ৪০ টি টেস্ট করা হয়েছে৷ গতকাল ছিল ১৩,০৮১টি ৷

এই পর্যন্ত মোট টেস্ট হয়েছে ৭ লক্ষ ৪৩ হাজার ৪৬৯ জনের৷ প্রতি মিলিয়নে টেস্ট ৮,২৬১ জন৷ এই মুহূর্তে সরকারি এবং বেসরকারি মিলিয়ে রাজ্যে ৫৬টি ল্যাবরেটরিতে করোনা টেস্ট হচ্ছে৷ আরও ৫ টি ল্যাবরেটরি অপেক্ষায় রয়েছে৷ বাংলায় ৮১ টি সরকারি এবং বেসরকারি হাসপাতালে আইসোলেশন শয্যা তৈরি করা হয়েছে৷

এর মধ্যে সরকারি ২৭ টি হাসপাতাল ও ৫৪ টি বেসরকারি হাসপাতাল রয়েছে৷ হাসপাতালগুলিতে আইসিইউ শয্যা রয়েছে ৯৪৮টি, ভেন্টিলেশন সুবিধা রয়েছে ৩৯৫টি৷ কিন্তু সরকারি কোয়ারেন্টাইন সেন্টার রয়েছে ৫৮২টি৷ এই পর্যন্ত শহরে মৃত্যু ৬২৩ জন৷ গত ২৪ ঘন্টায় শহরে মৃত্যু হয়েছে ১৫ জনের৷

ফলে মোট আক্রান্ত ১৫ হাজার ছাড়াল৷ এই পর্যন্ত মোট আক্রান্ত ১৫ হাজার ৩৩২ জন৷ নতুন করে ছাড়া পেয়েছেন ৬১৪ জন৷ ফলে কলকাতায় মোট ছাড়া পেলেন ৯ হাজার ২২ জন৷ শহরে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা ৫,৬৮৭ জন৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।