কলকাতা: বাংলায় প্রতিদিনই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে মৃতের সংখ্যা৷ পিছিয়ে নেই আক্রান্তের দিক থেকেও৷ পাশাপাশি বাড়ছে সুস্থ হয়ে উঠার হারও৷ মঙ্গলবারে চেয়ে আজ বুধবার ফের বাড়ল আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা৷

বুধবারের রাজ্য স্বাস্থ্য ভবনের বুলেটিনের তথ্য অনুযায়ী, একদিনে বাংলায় মৃত্যু হয়েছে ৬১ জন৷ এটাই একদিনের হিসেবে সর্বোচ্চ রেকর্ড৷ গতকাল মৃতের সংখ্যাটা ছিল ৫৪ জনে৷ মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১,৮৪৬ জনে৷ গতকাল মোট সংখ্যাটা ছিল ১,৭৮৫ জনে৷ গত ২৪ ঘন্টায় আক্রান্ত ২,৮১৬ জন৷

গতকাল মঙ্গলবার আক্রান্তের সংখ্যাটা ছিল ২,৭৫২ জনে৷ এই পর্যন্ত রাজ্যে মোট আক্রান্তের সংখ্যাটা বেড়ে হয়েছে ৮৩ হাজার ৮০০ জন৷ তবে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা ২২ হাজার ৯৯২ জন৷ একদিনে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন ২ হাজার ৭৮ জন৷

ফলে এই পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৫৮ হাজার ৯৬২ জন৷ সুস্থ হয়ে উঠার হার বেড়ে হল ৭০.৩৬ শতাংশ৷ গতকাল ছিল ৭০.২৪ শতাংশ৷ বাংলায় প্রতিদিনই বাড়ছে করোনা টেস্টের সংখ্যা৷ গত ২৪ ঘন্টায় টেস্ট হয়েছে ২৪ হাজার ৪৭ টি৷ একদিনে বাংলায় এটাই সর্বোচ্চ টেস্ট৷

গতকাল মঙ্গলবার ছিল ২২ হাজার ৩২১ টি৷ এই পর্যন্ত মোট টেস্টের সংখ্যা ১০ লক্ষ ছাড়িয়ে গেল৷ বুধবারের তথ্য অনুযায়ী,টেস্টের সংখ্যা ১০ লক্ষ ৩ হাজার ২৭টি৷ প্রতি ১০ লক্ষ জনসংখ্যায় টেস্টের সংখ্যা বেড়ে হল ১১,১৪৫ জনে৷ যে ৬১ জনের মৃত্যু হয়েছে তাদের মধ্যে কলকাতার ২৫ জন৷

উত্তর ২৪ পরগনারও ১৩ জন৷ দক্ষিণ ২৪ পরগনার ৪ জন৷ হাওড়া ৯ জন৷ হুগলি ১ জন৷ পূর্ব বর্ধমান ১ জন৷ মালদা ১ জন৷ দক্ষিণ দিনাজপুর ১ জন৷ উত্তর দিনাজপুর ১ জন৷ দার্জিলিং ৪ জন৷ আলিপুর ১ জন৷ গতকাল যে ৫৪ জনের মৃত্যু হয়েছিল, তাদের মধ্যে কলকাতার ১৫ জন৷ উত্তর ২৪ পরগনারও ১৪ জন৷

দক্ষিণ ২৪ পরগনার ৬ জন৷ হাওড়া ৬ জন৷ হুগলি ২ জন৷ পূর্ব বর্ধমান ১ জন৷ পশ্চিম মেদিনীপুর ১ জন৷ নদিয়া ১ জন৷ মুর্শিদাবাদ ১ জন৷ মালদা ১ জন৷ দক্ষিণ দিনাজপুর ২ জন৷ দার্জিলিং ৪ জন৷

এই মুহূর্তে সরকারি এবং বেসরকারি মিলিয়ে রাজ্যে ৫৯টি ল্যাবরেটরিতে করোনা টেস্ট হচ্ছে৷ আরও ৩ টি ল্যাবরেটরি অপেক্ষায় রয়েছে৷ বাংলায় ৮৩ টি সরকারি এবং বেসরকারি হাসপাতালে আইসোলেশন শয্যা তৈরি করা হয়েছে৷ এর মধ্যে সরকারি ২৮ টি হাসপাতাল ও ৫৫ টি বেসরকারি হাসপাতাল রয়েছে৷

হাসপাতালগুলিতে আইসিইউ শয্যা রয়েছে ৯৪৮টি, ভেন্টিলেশন সুবিধা রয়েছে ৩৯৫টি৷ কিন্তু সরকারি কোয়ারেন্টাইন সেন্টার রয়েছে ৫৮২টি৷

মঙ্গলবারের রাজ্য স্বাস্থ্য ভবনের বুলেটিনের তথ্য অনুযায়ী, একদিনে বাংলায় মৃত্যু হয়েছিল ৫৪ জনের৷ সেটাই ছিল একদিনের হিসেবে সর্বোচ্চ রেকর্ড৷ ২৪ ঘন্টায় আক্রান্ত ২ হাজার ৭৫২ জন৷ রাজ্যে মোট আক্রান্তের সংখ্যাটা ছিল ৮০ হাজার ৯৮৪ জন৷ তবে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যাটা ছিল ২২ হাজার ৩১৫ জন৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।