নয়াদিল্লি: করোনা আতঙ্কে কাঁপছে দেশ। বুধবার সকাল পর্যন্ত দেশজুড়ে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হলো ৫৬২। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে মারণ করোনার বলি এখনও পর্যন্ত ১১। বুধবার সকালেও তামিলনাড়ুর মাদুরাই এর হাসপাতালে করোনা আক্রান্ত এক ব্যক্তির মৃত্যুর খবর মিলেছে।

মধ্যপ্রদেশের নতুন করে পাঁচ করোনা আক্রান্ত রোগীর সন্ধান মিলেছে ইন্দোরে। পাঁচজনের শরীরে মিলেছে মারণ ভাইরাস। তাদের প্রত্যেকটি আইসোলেশন রেখে চিকিৎসা করা হচ্ছে মধ্যপ্রদেশে। বুধবার সকাল পর্যন্ত করোবা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৪।

মহারাষ্ট্রে ক্রমেই ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে মারণ করোনা। মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে সংকটের এই পরিস্থিতিতে রাজ্যবাসীকে প্রশাসনের সঙ্গে সবরকম সহযোগিতা করার জন্য আবেদন জানিয়েছেন লকডাউন চলাকালীন যাতে কেউ ঘরের বাইরে না আবেদন সে ব্যাপারেও আবেদন জানিয়েছেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী।

কেরলেও কাপুনি হয়ে দাঁড়াচ্ছে ভয়াল করোনা। বুধবার সকাল পর্যন্ত কেরালে ১০১ জন আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের সংস্পর্শে আসা বহু মানুষকে রাজ্যের বিভিন্ন হাসপাতালে আইসোলেশন ওয়ার্ডে রেখে রাখা হয়েছে।

করোনা থাবা বসিয়েছে রাজস্থানেও। সকাল পর্যন্ত রাজস্থানে ৩৩ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। ওই ৩৩ জনের সংস্পর্শে আসা বাকিদেরও কোয়ারেন্টাইন রাখা হয়েছে।

বিহারে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে চার। পাটনায় নতুন করে আরও একজন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। সম্প্রতি ২৯ বছরের যুবক গুজরাতের ভাব নগর থেকে পাটনায় ফেরেন।

করোনা ভাইরাসের আক্রমণ রুখতে চূড়ান্ত সর্তকতা জারি উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলিতে। দেশের বাকি অংশের মত এখনও পর্যন্ত উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলিতে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ নেয় ন। যদিও মঙ্গলবার মনিপুরে আক্রান্ত এক তরুনীর হদিস মেলে।

দেশ জুড়ে ভয়াবহ রূপ নিয়েছে বারণ করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। লকডাউন চলাকালীন কোনও নাগরিককে ঘরের বাইরে না বেরোনোর জন্য আবেদন করেছেন প্রধানমন্ত্রী। লকডাউন অমান্য করলে রাজ্যগুলিকে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির বিরুদ্ধে আইন মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন নরেন্দ্র মোদী।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।