নয়াদিল্লি: উত্তর-পূর্ব দিল্লির রোহিনী এলাকায় বিশেষ চাহিদাসম্পন্নদের একটি হোমে শিশু-সহ কমপক্ষে ২৩ জনের শরীরে বাসা বেঁধেছে নোভেল করোনাভাইরাস। দিল্লি সরকার পরিচালিত হোমটিতে সাড়ে পাঁচশো মানুষের থাকার বন্দোবন্ত রয়েছে। তবে হোমটিতে গাদাগাদি করে বর্তমানে ৯৬০ জন রয়েছেন বলে জানা গিয়েছে।

হোম সূত্রে জানা গিয়েছে, গত ৫ জুন থেকে ২৩ জুনের মধ্যে দিল্লির আশা কিরণ নামে ওই হোমের ২৩ জনের করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসে। আক্রান্তদের মধ্যে আটটি ১১-১৩ বছর বয়সী শিশুও রয়েছে। এছাড়াও আক্রান্তদের মধ্যে রয়েছেন সাতজন প্রাপ্তবয়স্ক আবাসিক। বাকি আক্রান্তরা হোমেরই কর্মী বলে জানা গিয়েছে।

দিল্লির এই হোমের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, বর্তমানে করোনা আক্রান্ত শিশু ও প্রাপ্তবয়স্ক আবাসিক-সহ ২০ জনকে আলাদা আলাদা করে রাখা হয়েছে।

তবে শিশুদের শরীরে করোনার হালকা উপসর্দ দেখা দিলে তাদের সুলতানপুরী কোভিড কেয়ার সেন্টারে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। অন্যদের অশোক বিহারের দীপ চাঁদ বান্ধু হাসপাতাল এবং দিলশাদ গার্ডেনের জিটিবি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে, নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক বাসিন্দা জানিয়েছেন, ওই হোমে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। হোমে গাদাগাদি করে আবাসিকদের রাখা হয়। সেই কারণেই সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা বেশি। হোমের প্রত্যেকের করোনা পরীক্ষা করানো হলে আক্রান্তের সংখ্যা আরও বাড়বে বলে তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

দিল্লির করোনা পরিস্থিতি ক্রমেই উদ্বেগ বাড়াচ্ছে। স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী সোমবার বিকেল পর্যন্ত দিল্লিতে নোভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৮৩ হাজার ৭৭। দিল্লিতে করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২ হাজার ৬২৩।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ