প্রতীতি ঘোষ, ব্যারাকপুর: রাজ্যে করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে । বর্তমানে রাজ্যে করোনায় সুস্থতার হার ৮৫ শতাংশ পেরিয়েছে । বর্তমানে রাজ্যে করোনা পরীক্ষা বেশি হওয়ায় আক্রান্ত বেশি হচ্ছে, তবে সুস্থতার হার অনেক বেড়েছে । এখন করোনা আক্রান্তদের কোন সরকারি হাসপাতালে বেড পেতে সমস্যা হয় না । পর্যাপ্ত বেড আছে রাজ্যের বিভিন্ন করোনা হাসপাতাল গুলোতে।

দেশের ৫টি বড় রাজ্যের তুলনায় পশ্চিমবঙ্গ করোনা মোকাবিলায় ভালো জায়গায় আছে । আমাদের এই দিন দেখতে হত না, যদি কেন্দ্র দেশবাসীর কথা ভেবে ৩০ জানুয়ারি থেকে বিভিন্ন রাজ্যের মধ্যে বিমান চলাচল বন্ধ করে দিত । বিজেপি দেশের মানুষের কথা না ভেবে ভোট রাজনীতির স্বার্থে সরকার পরিচালনা করছে । সেই কারনে দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে । এখনও ওরা বিহার ভোট নিয়ে রাজনীতি করছে । রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আছে বলে বাংলায় মানুষ বিনামূল্যে সুচিকিৎসা পাচ্ছে৷ মঙ্গলবার এমনই মন্তব্য করেন চিকিৎসক শান্তনু সেন৷

উত্তর ২৪ পরগনার ব্যারাকপুর স্টেডিয়ামে সেফহোম উদ্বোধন করে সাংবাদিকদের একথাই বললেন তৃণমূল সাংসদ তথা আইএমএ সভাপতি ডা: শান্তনু সেন। উত্তর ২৪ পরগনার ব্যারাকপুর ফুটবল স্টেডিয়ামকে কোভিড সেফহোম করা হল । মঙ্গলবার থেকে এই সেফহোম পরিষেবা চালু করা হয়েছে । রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর আগেই উত্তর ২৪ পরগনার বিভিন্ন পুরসভা এলাকায় সেফহোম পরিষেবা চালুর কথা ঘোষণা করেছিল।

সেই মত এবার ব্যারাকপুর পুরসভার পক্ষ থেকে নতুন এই সেফ হোম পরিষেবা চালু হল । এখানে কোভিড পজিটিভ রোগীরা চিকিৎসা পরিষেবা পাবে । ব্যারাকপুর স্টেডিয়ামে মোট ২০ জন কোভিড পজিটিভ রোগী ভর্তি হতে পারবে । উপসর্গহীন করোনা আক্রান্ত যাদের বাড়িতে আইসোলেশোনে থাকার ব্যবস্থা নেই, তারা এই সেফহোমে থাকার সুযোগ পাবে । আপাতত ১০ জন পুরুষ ও ১০ জন মহিলা রোগী এই সেফহোমে থাকবে ।

ব্যারাকপুরে উপসর্গহীন করোনা আক্রান্তদের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় নতুন এই সেফহোম গড়ে তুলল প্রশাসন । ব্যারাকপুর ফুটবল স্টেডিয়ামের বাইরে সব সময় অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস থাকবে এখানকার রোগীদের জন্য। এই সেফহোমে কোন রোগীর অবস্থা খারাপ হলে দ্রুত তাকে রাজ্য সরকারের অধীনস্থ অন্য করোনা হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হবে ।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।