নয়াদিল্লি: না, এখনও থামেনি করোনা ভাইরাস। থেমে গিয়েছে গোটা দেশ। চলছে না ট্রেন, বিমান। শ্রমিকদের হাঁটতে হাঁটতে বাড়ি ফিরতে হচ্ছে। অথচ ক্রমশ বেড়ে চলেছে আক্রান্তের সংখ্যা।

লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে অর্থাৎ বৃহস্পতিবার একধাক্কায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৮৮ জন। যার ফলে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৬৯৪। নতুন করে মৃত্যু হয়েছে মহারাষ্ট্রে, জম্মু ও কাশ্মীর, কর্ণাটক, রাজস্থানে। মৃতের সংখ্যা হয়েছে ১৭।

এদিন প্রথম মৃত্যু হয় কাশ্মীরে। মহারাষ্ট্রেও একজনের মৃত্যু হয়েছে। মহারাষ্ট্রে এক মহিলার মৃত্যুর পর জানা গিয়েছে যে তাঁর শরীরে করোনার সংক্রমণ ছিল। নাভি মুম্বইয়ের বাসিন্দা ওই মহিলা করোনার উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। এরপর তাঁর নমুনা পরীক্ষা করা হয়। তাঁর মৃত্যুর পর তাঁর রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। তাঁর আত্মীয়দের সতর্ক করছেন চিকিৎসকেরা। বৃহস্পতিবার সকালেই কাশ্মীরে এক ৬৫ বছরের বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে। ভূস্বর্গেও করোনার শিকার এই প্রথম।

করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় দেশ জুড়ে চলছে ২১ দিনের টানা লকডাউন। মঙ্গলবার রাতেই দেশজুড়ে লকডাউন ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। লকডাউন চলাকালীন বাঁশিতে নিজেদের ঘরে থাকতে আবেদন জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। এ ব্যাপারে রাজ্যগুলিকে ও যথোপযুক্ত পদক্ষেপ করতে নির্দেশ দিয়েছেন নরেন্দ্র মোদী।

এদিকে, পশ্চিমবঙ্গে নতুন করে একজনের করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গিয়েছে। সবথেকে উল্লেখযোগ্য বিষয় হল এই ব্যক্তির কোনও বিদেশ ভ্রমনের রেকর্ড নেই। বিশেষজ্ঞদের একাংশের আশঙ্কা, তাহলে কি কমিউনিটি ট্রান্সমিশন ঘটে গিয়েছে। জানা গিয়েছে, বিষয়টি যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়ে দেখা হচ্ছে। ইতিমধ্যে এই ব্যক্তির সংস্পর্শে যারা এসেছেন তাঁদের খোঁজ শুরু হয়েছে। পরিবারের লোককেও আইসোলেশনে ইতিমধ্যে পাঠানো হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে।

সূত্রের খবর, ৬৬ বছরের ওই করোনা আক্রান্ত নয়াবাদ এলাকার বাসিন্দা। বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে, জ্বর এবং শ্বাসকষ্ট নিয়েই বাইপাসের ধারে বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁকে। ডাক্তারদের সন্দেহ হওয়াতে করোনা ভাইরাসের পরীক্ষা করা হয়। নাইসেডে করোনা পরীক্ষায় ওই ব্যক্তির রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে।

সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, ওই ব্যক্তি বা তাঁর পরিজনরা হাসপাতালকে জানানো ডিক্লারেশন ফর্মে কোনও বিদেশ যাত্রার উল্লেখ করেননি। এমনকি করোনা উপদ্রুত কোনও রাজ্যে যাওয়ার কথাও জানানো হয়নি। তাহলে কীভাবে আক্রান্ত হলেন এই ব্যক্তি? সেটাই ভাবাচ্ছে সবাইকে। যদিও স্বাস্থ্য আধিকারিকরা মনে করছেন, দমদমের মৃত ব্যক্তির মতো কোনও না কোনওভাবে তাঁর করোনা যোগের খোঁজ মিলবে।

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।