করোনা থেকে সাবধান
ফাইল ছবি

নয়াদিল্লি: দেশে মারণ করোনার সংক্রমণ সর্বোচ্চ সীমায় পৌঁছে গেলে আক্রান্তদের জন্য দেশের হাসপাতালগুলিতে পর্যাপ্ত বেড ও ভেন্টিলেটরের অভাব দেখা দিতে পারে বলে আশঙ্কা করছে আইসিএমআর-এর অপারেশনস রিসার্চ গ্রুপ। আগামী নভেম্বর মাসের মাঝামাঝি সময় গোটা দেশে করোনার সংক্রমণ তীব্র হতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা।

বিশেষজ্ঞরা সমীক্ষা চালিয়ে দেখেছেন একটানা লকডাউনের জেরে দেশে করোনার সংক্রমণ কিছুটা হলেও কমানো গিয়েছে। সেই কারণেই দেশে করোনার তীব্র সংক্রমণের সময়ও ২ মাসেরও বেশি সময় পিছিয়ে গিয়েছে।

বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা আগামী নভেম্বর মাসের মাঝামাঝি সময়ে দেশে করোনার সর্বোচ্চ সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়তে পারে। সত্যিই যদি সেই আশঙ্কা সত্যি হয় তবে সেই সময়ে দেশে চিকিৎসা ব্যবস্থা ভেঙে পড়ারও আশঙ্কা করছে আইসিএমআর-এর অপারেশনস রিসার্চ গ্রুপ।

বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, সত্যিই যদি আগামী নভেম্বরে দেশে করোনার সর্বোচ্চ সংক্রমণ ছড়ানোর পরিস্থিতি তৈরি হয় তবে সেই সময় দেশজুড়ে হাসপাতালগুলিতে করোনা আক্রান্ত রোগীদের জন্য বেডের ব্যবস্থা করতেই হিমশি দশা হতে পারে সরকারের।

এমনকী সংকটপূর্ণ রোগীদের ক্ষেত্রে ভেন্টিলেটরের ব্যবস্থা করতেও নাজেহাল দশা হতে পারে হাসপাতালগুলির।

বর্তমান পরিস্থিতিতে দেশে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা।  গত ২৪ ঘন্টায় দেশে করোনায় মৃত্যু হয়েছে আরও ৩২৫ জনের। নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ১১ হাজার ৫০২ জন।

নতুন করে মৃত্যু ও সংক্রমণের জেরে দেশে মোট আক্রান্ত বেড়ে ৩ লক্ষ ৩২ হাজার ৪২৪। করোনায় মোট মৃত্যু হয়েছে ৯৫২০ জনের।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।