ক্যালিফোর্নিয়া: ভয়াল করোনার সংক্রমণ নিয়ে এবার বড়সড় আশঙ্কার কথা শোনালেন বিজ্ঞানীরা। জলের মাধ্যমেও নাকি ছড়িয়ে পড়তে পারে মারণ করোনাভাইরাস। একটি ঘটনার কথা মনে করিয়ে আশঙ্কার সেই কথা শোনালেন বিজ্ঞানীরা। গোটা বিশ্বে কাঁপুনি ধরিয়েছে নোভেল করোনাভাইরাস।

একের পর এক দেশে বেড়েই চলেছে সংক্রমণ। করোনার ভ্যাকসিন আবিস্কার করতে গিয়ে ঘুম ছুটেছে বিজ্ঞানীদের। এখনও পর্যন্ত করোনার প্রতিষেধক আবিস্কার করা যায়নি। এরই মধ্যে চাঞ্চল্যকর এক আশঙ্কার কথা শোনালেন বিজ্ঞানীরা।

গবেষকদের দাবি, জলের মাধ্যমেও নাকি ছড়াতে পারে করোনাভাইরাস। একটি পত্রিকার প্রতিবেদনে এমনই আশঙ্কার কথা জানিয়েছেন ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয় ও ইতালির সালের্নো বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই গবেষক। গবেষকদের মতে, বর্জ্যপদার্থযুক্ত জল পরিশোধনের সময় আদৌ জলকে করোনামুক্ত করা যায় কি না সে সম্পর্কে সুনিশ্চিত হওয়া যায়নি।

করোনার জীবাণু যে বাতাসেও বেশ কিছুক্ষণ বেঁচে থাকতে পারে আগেই এই তথ্য জানিয়েছে স্বাস্থ্যমন্ত্রক। গবেষকরা জানিয়েছেন, এর আগে সার্সও বাতাসের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছিল। গবেষকরা জানিয়েছেন, ২০০৩ সালেও কলের জল থেকে হংকংয়ে ভাইরাস সংক্রমিত হয়েছিল। ২০০৩ সালেই সার্স ভাইরাসের উপর গবেষণা চালিয়ে দেখা গিয়েছে, জীবাণুমুক্ত করা যায়নি বলেই কলের জল থেকে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ে।

তবে এখনও পর্যন্ত করোনাভাইরাসও যে জলের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়তে পারে তা নিশ্চিত করে বলতে পারেননি বিশেষজ্ঞরা। সেই কারণেই এখনই এই বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগেরও কোনও কারণ নেই বলে জানিয়েছেন তাঁরা। তবে যেহেতু সার্সের ক্ষেত্রে এমন ঘটনা সামনে এসেছিল, তাই বিষয়টি নিয়ে সতর্ক থাকতে হবে বলে জানিয়েছেন তাঁরা।

গবেষকদের আরও আশঙ্কা, সত্যিই যদি জলের মাধ্যমে নোভেল করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ে তবে তার ফল হতে পারে মারাত্মক। শহর বা মফস্বলে বহু মানুষ রাস্তার কল থেকে জল নিয়ে ব্যবহার করেন। সেক্ষেত্রে মারণ ভাইরাসের সংক্রমণ ব্যাপক হারে ছড়ানোর আশঙ্কা থাকবে।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV