কলকাতা : পুলিশ কমিশনারের পর করোনা আক্রান্ত কলকাতা পুলিশের গোয়েন্দা প্রধান মুরলীধর শর্মা৷ মৃদু উপসর্গ থাকায় রয়েছে হোম আইসোলেশনে৷ কিছুদিন আগেই কলকাতার পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা করোনা আক্রান্ত হন৷

হোম আইসোলেশনে থেকেই অফিসের কাজ করছেন৷ এবার করোনা আক্রান্ত হলেন কলকাতা পুলিশের জয়েন্ট কমিশনার (ক্রাইম)তথা গোয়েন্দা প্রধান মুরলীধর শর্মা৷

লালবাজার সূত্রে খবর, সম্প্রতি গোয়েন্দা প্রধান মুরলীধর শর্মা অসুস্থবোধ করায় হোম আইসোলেশনে ছিলেন৷ তারপর তার করোনা পরীক্ষা করা হয়৷ সেই রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে৷ আপাতত চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে থাকবেন হোম আইসোলেশনে৷

অন্যদিকে সাময়িকভাবে কলকাতা পুলিশের গোয়েন্দা প্রধানের দায়িত্ব সামলাবেন কলকাতা পুলিশের জয়েন্ট কমিশনার (ট্রাফিক) সন্তোষ কুমার পান্ডে৷ এর আগে করোনা আক্রান্ত হন কলকাতা পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা৷ তাঁরও করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ এসেছিল৷

তারপর থেকে রয়েছেন হোম আইসোলেশনে৷ করোনা আক্রান্ত হওযার আগে থেকেই বেশ কয়েক দিন ধরে কলকাতা পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা সামান্য অসুস্থ বোধ করছিলেন৷ এমনকি সামান্য জ্বর থাকায় করোনা পরীক্ষা করান৷ তাতে দেখা গিয়েছিল তিঁনি করোনা পজিটিভ৷ তারপরই তিনি হোম আইসোলেশনে চলে যান৷ রয়েছেন আলাদা৷

তবে তিনি সুস্থ আছেন বলে জানা গিয়েছে৷ চিকিৎসকেরা তাঁর শারীরিক পরিস্থিতির উপর নজর রাখার পরামর্শ দিয়েছেন৷ করোনা রিপোর্ট আসার আগে থেকেই কলকাতা পুলিশের সদর দফতর লালবাজারে আসেননি পুলিশ কমিশনার৷

তার আগে করোনা পরিস্থিতিতে তিনি কলকাতার এ প্রান্ত থেকে ওই প্রান্তে ঘুরে বেরিয়েছেন৷ একেবারে সামনের সারিতে থেকেই করোনার বিরুদ্ধে লড়েছেন৷ শুরু থেকেই কলকাতা পুলিশের অন্দরে হানা দেয় করোনা ভাইরাস৷ ক্রমে তা বাড়তে থাকে৷

সূত্রের খবর, এই পর্যন্ত দুই হাজারের বেশি পুলিশ অফিসার ও কর্মীরা আক্রন্ত হয়েছেন৷ তবে তাদের মধ্যে অধিকাংশই সুস্থ হয়ে উঠেছেন৷ কিন্তু কয়েক জনের প্রাণও কেড়ে নিয়েছে করোনা৷ এই পর্যন্ত মোট ১৯ জন পুলিশকর্মী ও আধিকারিকের মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গিয়েছে৷

করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন অ্যাসিস্ট্যান্ট সাব ইনস্পেক্টর গৌতম মাহাতো৷ কিন্তু শেষপর্যন্ত তিনি করোনার কাছে হেরে যান৷ কলকাতা পুলিশের স্পেশাল ব্রাঞ্চে কর্মরত ছিলেন তিন৷ একেবারে সামনের সারিতে থেকে লড়ছিলেন করোনা-যুদ্ধে৷ করোনা আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয়েছিলেন হাসপাতালে৷ সেখানেই তার মৃত্যু হয়৷

এছাড়া করোনা আক্রান্ত হয়ে কলকাতায় পুলিশের এক অ্যাসিস্ট্যান্ট কমিশনারের মৃত্যু হয়েছে৷ মাসখানেক আগে প্রাণ হারান সেন্ট্রাল ডিভিশনের এসি উদয়শঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তাছাড়া করোনা আক্রান্ত হয়ে কলকাতা পুলিশের সাউথ ডিভিশনের কনস্টেবল সেবাস্তিয়ান খাকার মৃত্যু হয়৷

এবং শিয়ালদহ ট্রাফিক গার্ডের কনস্টেবল দিলীপ সর্দার,কলকাতা পুলিশের ইস্ট ট্রাফিক গার্ডের সিভিক ভলান্টিয়ার সুব্রত দাস, হেস্টিংস থানার কনস্টেবল কৃষ্ণকান্ত বর্মন, কলকাতা ট্রাফিক পুলিশের ইকুইপমেন্ট সেলের অফিসার ইনচার্জ অভিজ্ঞান মুখার্জির, চারু মার্কেট থানার কনস্টেবল দেবেন্দ্র নাথ তির্কি, চিৎপুর থানার অ্যাসিস্ট্যান্ট সাব ইন্সপেক্টর তপন চন্দ্র কুমারের মৃত্যু হয়৷

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।