কলকাতা: বাংলায় আরও কমল দৈনিক মৃত্যু ও সংক্রমণ৷ গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু হয়েছে মাত্র ২২ জনের৷ আক্রান্ত হাজারের নিচে৷

বুধবার সন্ধ্যায় রাজ্য স্বাস্থ্য ভবন বুলেটিনের তথ্য অনুযায়ী,একদিনে রাজ্যে মৃত্যু হয়েছে ২২ জনের৷ মঙ্গলবার ছিল ২৪ জন৷ সব মিলিয়ে বাংলায় মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৯ হাজার ৮৬৩ জন৷

তবুও চিন্তা বাড়াচ্ছে মৃত্যুহার৷ ৫ জানুয়ারির তথ্য অনুযায়ী,বাংলায় মৃত্যুহার ১.৭৭ শতাংশ৷ বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ২ হাজার ২০৫ জন৷ হোম আইসোলেশনে ৭ হাজার ১২ জন৷ আর সেফ হোমে রয়েছেন মাত্র ৭৬ জন৷

একদিনে আক্রান্ত ৮৬৮ জন৷ মঙ্গলবার ছিল ৮১২ জন৷ তারফলে বাংলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যাটা বেড়ে ৫ লক্ষ ৫৭ হাজার ২৫২ জন৷

রাজ্যে একদিনে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১,২৭১ জন৷ মঙ্গলবার ছিল ১,১৬৬ জন৷ সোমবার ছিল ১,৩৪৭ জন৷ সব মিলিয়ে রাজ্যে মোট সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৫ লক্ষ ৩৮ হাজার ৫২১ জন৷ আর সুস্থতার হার বেড়ে ৯৬.৬৪ শতাংশ৷

অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যাটা কমে ৯ হাজারের নিচে৷ তথ্য অনুযায়ী,৮ হাজার ৮৬৮ জন৷ মঙ্গলবার ছিল ৯ হাজার ২৯৩ জন৷ তুলনামূলক ৪২৫ জন কম৷

এই পর্যন্ত বাংলায় করোনা নমুনা টেস্ট হয়েছে ৭৩ লক্ষের বেশি৷ তথ্য অনুযায়ী ৭৩ লক্ষ ১৫৪ টি৷ ফলে প্রতি ১০ লক্ষ জনসংখ্যায় টেস্টের সংখ্যা বেড়ে হল ৮১,১১৩ জন৷ একদিনে ৩৪ হাজার ১১৬ টি টেস্ট হয়েছে৷ মঙ্গলবার ছিল ৩০ হাজার ৭১২ টি টেস্ট হয়েছে৷

এই মুহূর্তে সরকারি এবং বেসরকারি মিলিয়ে রাজ্যে ৯৯ টি ল্যাবরেটরিতে করোনা টেস্ট হচ্ছে৷ আরও ১ টি ল্যাবরেটরি অপেক্ষায় রয়েছে৷

বি: দ্র: – প্রতিদিন সন্ধ্যায় রাজ্য স্বাস্থ্য ভবন থেকে যে বুলেটিন প্রকাশিত হয়,সেখানে আগের দিন সকাল ৯ টা থেকে বুলেটিন প্রকাশিত হওয়ার দিন সকাল ৯ টা পর্যন্ত তথ্য উল্লেখ করা হয়৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।