বেজিং: সর্বপ্রথম চিনের উহান শহর থেকেই মারণ ভাইরাস করোনা ছড়িয়ে পড়ে গোটা বিশ্বে। একাধিক হলিউড তারকা থেকে শুরু করে অস্ট্রেলিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, স্পেনের প্রধানমন্ত্রীর স্ত্রী এবং ব্রিটেনের যুবরাজ চার্লস পর্যন্ত করোনা দ্বারা আক্রান্ত হয়েছেন। কিন্তু চিনের একজন নেতাকেও মারণ করোনা স্পর্শ করতে পারেনি। এমনকি চিনের কোনও সামরিক কমান্ডারকে স্পর্শ করেনি করোনা ভাইরাস।

মাত্র কয়েক সপ্তাহে মারণ করোনা গ্রাস করেছে গোটা বিশ্বকে। লক্ষ লক্ষ মানুষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত। ইতিমধ্যেই ২১ হাজারেরও বেশি মানুষ করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন। ক্রমেই বাড়ছে মৃত ও আক্রান্তের সংখ্যা। গোটা বিশ্ব আজ ঘরবন্দি। মৃত্যুর আতঙ্ক তাড়া করে বেড়াচ্ছে বিশ্ববাসীকে।

তবে ভাইরাসটি চিনের রাজধানী বেজিং এবং অর্থনৈতিক রাজধানী সাংহাইতে পৌঁছয়নি। অথচ শহরগুলির মধ্যে খুব একটা দূরত্ব নেই। বেজিং এবং সাংহাইয়ের উপর করোনার কোনও প্রভাব পড়েনি। চিনের রাজধানী বেজিংয়ে চিনের গুরুত্বপূর্ণ নেতাদের বাস। চিনের শীর্ষ স্থানীয় সামরিক নেতারাও বেজিংয়ে থাকেন। এই মুহূর্তে বেজিং স্বাভাবিক। খোলা দোকান বাজার। লকডাউন এর চিহ্নমাত্র নেই এখানে।

চিনের অর্থনৈতিক রাজধানী বলে পরিচিত সাংহাই। দেশের বিখ্যাত শিল্পপতিদের বাস এই শহরে। সাংহাইতেও করোনার কোনও প্রভাব নেই।

উহান শহরেই চিন আটকে রাখতে সক্ষম হয়েছে ভয়াল করোনাকে। গোটা বিশ্বে আতঙ্ক বাড়ালেও মারন ভাইরাসকে। উহানের দেওয়াল টপকাতে দেয়নি চিন।