প্রতীকী ছবি

কলকাতা: মহামারীর মধ্যেই ঘূর্ণিঝড় আমফানের তান্ডব। এ যেন মরার উপর খাড়ার ঘা। ফলে জোড়া বিপর্যয়ে বাংলায় প্রাণ গেল বহু মানুষের। রাজ্যে জোড়া বিপর্যয়ে মৃত্যু হয়েছে ৮২ জনের । এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৬ জনের । বাকি ৭৬ জনের মৃত্যু হয়েছে ঘূর্ণিঝড় আমফানের তান্ডবে। তবে এই সংখ্যাটা আরও বাড়ে কিনা, তা সময়ই বলবে।

গত ২৪ ঘণ্টায় অর্থাৎ বুধবার থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা পর্যন্ত করোনা ৬ জন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছ। এর ফলে রাজ্যে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে হল ২৫৯জন। এর মধ্যে করোনায় মৃত্যু ১৮৭। বৃহস্পতিবার রাজ্য রাতে রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতরের বুলেটিনে এই তথ্য দেওয়া হয়েছে। এছাড়া নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৯৪ জন। এর ফলে বাংলায় মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হল ৩,১৯৭ জন।

নতুন যে ৯৪ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন তাঁদের মধ্যে ৪৭ জনই কলকাতার। ১০ জন উত্তর চব্বিশ পরগনার। বৃহস্পতিবারের তথ্য অনুযায়ী, এই পর্যন্ত রাজ্যে করোনা সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ১,৭৪৫। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৫৭ জন। ফলে রাজ্যে মোট সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১,১৯৩ জন। সুস্থ হয়ে ওঠার হার বেড়ে দাঁড়াল ৩৭.৩১ শতাংশ।

ঘূর্ণিঝড় আমফানের তান্ডবের পরপরই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন , আমফানে রাজ্যে মৃত ৭২। এর মধ্যে শুধু কলকাতায় ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছ। এছাড়া সুন্দরবনে ৪ জনের, হাওড়ায় ৭ জনের, উত্তর ২৪ পরগনা ১৭ জনের, পূর্ব মেদিনীপুর ৬ জনের, চন্দননগর ২ জনের, বারুইপুর ৬ জনের এবং ডায়মন্ডহারবারে ৮ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান।

তারপর রাজ্যে আরও মৃতদেহ উদ্ধার হয়। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কলকাতা পুলিশ জানিয়েছে, শুধু কলকাতায় মৃত্যু হয়েছে ১৯ জনের । এর মধ্যে ১৫ জনকে শনাক্ত করা গিয়েছে। বাকি চার জনের পরিচয় এখনও জানা যায়নি।তবে প্রত্যেকেরই অস্বাভাবিক মৃত্যু ঘটেছে। দেহগুলি ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ