কলকাতা:  এবার করোনায় আক্রান্ত বেলঘরিয়ার বাসিন্দা। মঙ্গলবার ওই ব্যক্তির রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। তিনি বেলঘরিয়ার জেনিথ হাসপাতালে ভর্তি বলে জানা গিয়েছে। ৫৭ বছর বয়সী ও‌ই ব্যক্তির ভিন দেশে বা ভিনরাজ্যে যাওয়ার কোনও ইতিহাস নেই। তিনি রথতলা এলাকায় একটি রোল-চাউমিনের দোকান চালান বলে জানা গিয়েছে। কীভাবে তিনি আক্রান্ত হলেন, তা এখনও স্পষ্ট নয়। কোনও ক্রেতার কাছ থেকে কোনওভাবে সংক্রমণ ঘটেছে নাকি কোনও হাসপাতাল থেকে এই মারণ রোগের সংক্রমণ ঘটেছে তা নিয়ে ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে।

জানা যাচ্ছে, ওই ব্যাক্তি কিডনি জনিত একাধিক শারীরিক সমস্যা রয়েছে। ডায়লেসিস করাতে যেতেন জেনিথে। ডায়লেসিস করাতে এসেই অসুস্থ হয়ে পড়েন ওই ব্যক্তি। হাসপাতাল থেকেও এই রোগের সংক্রমণ ছড়াতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

গত ২৩ মার্চ থেকে তিনি অসুস্থ। সোমবার তাঁর নমুনা পরীক্ষা হয়। মঙ্গলবার রিপোর্ট এসেছে। তাতে তাঁর শরীরে করোনার সংক্রমণ পাওয়া গিয়েছে। তাঁর পরিবার পরিজনকে কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে। অণ্যদিকে, বেলঘরিয়ার ওই হাসপাতালে আইসোলেশনে এই মুহূর্তে রাখা হয়েছে তাঁকে।

এর আগে মঙ্গলবার সকালেই হাওড়া হাসপাতালে এক মহিলার করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে। এই মুহূর্তে রাজ্যে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২৭। মৃতের সংখ্যা ৩। এদিন সকালে নতুন করে তিনজন আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে দু’জন কলকাতার বাসিন্দা ও একজন মেদিনীপুরের।

মধ্যবয়স্কা ওই মহিলা গত রবিবার থেকে ভর্তি ছিলেন হাওড়া জেলা হাসপাতালে। সোমবার রাতে তাঁর মৃত্যু হয়। হাসপাতাল সূত্রের খবর, ফাইনাল রিপোর্ট এখনও আসেনি। যদিও এসএসকেএম সূত্র মারফত জানা গিয়েছে, ওনার রিপোর্ট পজিটিভ। তিনি আলিপুরদুয়ার থেকে ট্রেনে ফিরেছিলেন। তবে ওনার কোনও ইন্টারন্যাশনাল ট্র‍্যাভেল হিস্ট্রি ছিল না। গত কয়েকদিন জ্বর, সর্দি, কাশি, শ্বাসকষ্ট উপসর্গ নিয়ে তিনি হাওড়া জেলা হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। সোমবার রাতে তার মৃত্যু হয়।