কলকাতা: করোনায় আক্রান্ত হলেন এক স্বাস্থ্যকর্মী। এই প্রথম রাজ্যের কোনও স্বাস্থ্যকর্মী মারণ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হলেন। বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে, তিনি নাগেরবাজারের বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি। বিমানবন্দর এলাকার বাসিন্দা এই নার্সের বিদেশ বা ভিন রাজ্যে যাতায়াতের রেকর্ড নেই। তাহলে কীভাবে তিনি করোনায় আক্রান্ত হলেন তা নিয়ে ধোঁয়াশা রয়েছে। যদিও এখনও পর্যন্ত সরকারিভাবে কিছুই জানানো হয়নি। সূত্র মাফিক এই খবর পাওয়া গিয়েছে। সরকারের তরফে এই বিষয়ে বিস্তারিত আরও জানানো হবে বলে জানা যাচ্ছে।

জানা যাচ্ছে, ওই নার্স মধ্যমগ্রামের বাসিন্দা। একাধিক সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে, ওই স্বাস্থ্যকর্মী যেখানে কাজ করেন সেখানে করোনায় আক্রান্ত এক বৃদ্ধের চিকিৎসা চলছে। সেখান থেকেই তাঁর শরীরেও করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। জানা যাচ্ছে, চিকিৎসাধীন ওই বৃদ্ধা সম্প্রতি ইতালি থেকে ঘুরে আসেন। আর সেখান থেকে ঘুরে আসার পরেই জ্বর-শরীর খারাপ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। এর পর তাঁর লালারসের নমুনা নাইসেডে পাঠালে সেই রিপোর্ট পজিটিভ পাওয়া যায় বুধবার রাতে।

স্বাস্থ্য ভবন সূত্রে জানা গিয়েছে, ওই বৃদ্ধার চিকিৎসার সঙ্গে সরাসরি যুক্ত ছিলেন এই নার্স। তাঁকে ওই হাসপাতালেই আইসোলেশনে রাখা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। করোনা আক্রান্তের চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় সতর্কতা না মানার কারণেই কি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন? তা নিয়ে ধোঁয়াশা রয়েছে। জানা গিয়েছে, ওই নার্সের কাছাকাছি যারা এসেছেন তাঁদের ইতিমধ্যে চিহ্নিত করার কাজ শুরু হয়েছে। নার্সের পরিবারকে পাঠানো হয়েছে আইসোলেশনে।

অন্যদিকে এই মুহূর্তে রাজ্যে করোনা আক্রান্ত কত তা নিয়ে ধোঁয়াশা রয়েছে। বৃহস্পতিবার নবান্ন থেকে একবার বলা হয় যে রাজ্যে করোনায় আক্রান্ত ৫৩ এবং মৃত ৭জন। এর কিছুক্ষণ পরেই সাংবাদিক বৈঠকে মুখোমুখি হন রাজ্যের মুখ্যসচিব। তিনি জানান, ৫৩ নয়, রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩৪। এবং মৃতের সংখ্যা মাত্র তিন।