ইন্টারনেট থেকে প্রাপ্ত ছবি৷

ভোপাল: কংগ্রেসের রোড শোয়ে মহিলা বিজেপি কর্মী? একি অবাক কাণ্ড! ভুল শুধরে দিল পুলিশ৷ জানাল, ওরা বিজেপির লোক নয়, সাদা পোশাকের পুলিশ৷ তাহলে পুলিশের গলায় গেরুয়া স্কার্ভ ঝুলছে কেন? উত্তর না দিয়ে এড়িয়ে গেলেন ওই পুলিশ কর্মী৷

মধ্যপ্রদেশের ভোপালে কংগ্রেস প্রার্থী দিগ্বিজয় সিংয়ের রোড শো শুরু হবে৷ সেখানে সাদা পোশাকের মহিলা পুলিশ কর্মীদের গলায় গেরুয়া স্কার্ভ ঝুলতে দেখা গেল৷ এই নিয়ে তাদের প্রশ্ন করায় এক মহিলা পুলিশ কর্মীর উত্তর, ‘‘আমাদের এই স্কার্ভ পরতে বলা হয়েছে৷’’ পুলিশের এই ভূমিকা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন৷ সমালোচকদের মতে, নিরপেক্ষতা বজায় রেখে আইনশৃঙ্খলা রক্ষা করা তাদের কর্তব্য৷ সেখানে এই ধরনের আচরণ একটি বিশেষ রাজনৈতিক দলের প্রতি আনুগত্য দেখানো বোঝায়৷

যদিও ভোপালের ডিআইজির দাবি, এরকম কোনও ঘটনা ঘটেনি৷ কোনও পুলিশ কর্মীই গেরুয়া বা অন্য কোনও রঙের বসন গলায় জড়ায়নি৷ তবে তিনি জানান, এই রোড শো সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা করতে অনেক স্বেচ্ছাসেবক নেওয়া হয়েছিল৷ তাদের এরকম পোশাক পরার মধ্যে কোনও বিধিনিষেধ নেই৷

আর দু’দফার ভোট বাকি৷ এই দু’দফার ভোটে অন্যতম নজরকাড়া কেন্দ্র হয়ে উঠেছে ভোপাল৷ কংগ্রেসের দিগ্বিজয় সিংয়ের বিপরীতে বিজেপি দাঁড় করিয়েছে সাধ্বী প্রজ্ঞাকে৷ ২০০৮ সালে মালেগাঁও বিস্ফোরণের অভিযুক্ত সাধ্বী৷ যদিও বিজেপির দাবি, কংগ্রেস যে গেরুয়া সন্ত্রাসের কথা বলে সেই থিওরির শিকার তিনি৷

ভোপালে দিগ্বিজয় সিংয়ের জয়ের কামনায় কম্পিউটার বাবা যজ্ঞের আয়োজন করেন৷ স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে সেখানে সামিল হন কংগ্রেস প্রার্থী নিজে৷ সেই কম্পিউটার বাবা এদিন দিগ্বিজয় সিংয়ের সমর্থনে বিশাল রোড শোয়ের আয়োজন করেন৷

২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে আম আদমি পার্টির হয়ে লড়তে ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন কম্পিউটার বাবা। তা হয়ে ওঠেনি। পরে তিনি ভারতীয় জনতা পার্টিতে যোগ দান করেন। পদ্মের প্রতীকেই বিধানসভা নির্বাচনে লড়াই করে মধ্যপ্রদেশের বিধায়ক হন। মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান তাঁকে মন্ত্রীসভাতেও জায়গা দিয়েছিলেন।