শ্রীনগর: সাত সকালে বড় সড় জঙ্গি হামলার হাত থেকে রক্ষা পেল জম্মু ও কাশ্মীরের অনন্তনাগ জেলার ডেপুটি কমিশনারের অফিস। শনিবার সকাল ১১ টা নাগাদ জম্মু ও কাশ্মীরের রাজধানী শ্রীনগর থেকে প্রায় ৫৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত জম্মুর অনন্তনাগ শহরে ডেপুটি কমিশনারের অফিসের বাইরে বোমা মারে সন্ত্রাসবাদীরা।

শনিবার সকালে সংবাদ সংস্থা পিটিআই’এর কাছে ডেপুটি কমিশনের অফিসের তরফে এই হামলার খবর জানানো হয়েছে। যদিও সন্ত্রাসবাদীদের ছোঁড়া বোমার আঘাতে কেউ মারা যায়নি বলে জানা গিয়েছে। তবে এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত দশ জন সাধারণ মানুষ আহত হয়েছে বলে কমিশন সূত্রে জানা গিয়েছে।

গত ৫ অগস্ট কাশ্মীরের স্পেশাল স্ট্যাটাস ৩৭০ ধারা তুলে নেওয়ার পর থেকেই গত দু মাস ধরে উত্তপ্ত হয়ে রয়েছে জম্মু ও কাশ্মীরের রাজনৈতিক আবহাওয়া। যার জেরে এর আগেও উপত্যকা সহ রাজধানী শ্রীনগরে একাধিকবার সেনার সঙ্গে পাক বাহিনীর সংঘর্ষ ঘটেছে। কিন্তু আজ আবার হঠাৎ করে কি কারনে এই গ্রেনেড হামলা সেই বিষয়ে সরকারি তরফে এখনও স্পষ্ট করে কিছু জানানো হয়নি।

সংবাদ সংস্থা পিটিআই জানিয়েছে, এদিন সকালে গ্রেনেড হামলার জন্য সন্ত্রাসবাদীরা কড়া নিরাপত্তার বেষ্টনীতে ঘেরা ডেপুটি কমিশনের অফিসকে তাক করলেও দুষ্কৃতীদের ছোঁড়া গ্রেনেড লক্ষ্যভ্রষ্ট হয় বলে জানা গিয়েছে। ডেপুটি কমিশনারের অফিসের বাইরে হামলা চালানোর সময় তা দুষ্কৃতীদের লক্ষ্য ভ্রষ্ট হয়ে রাস্তার সাধারণ পথচারীদের গায়ে গিয়ে লাগে বলে জানা গিয়েছে।

বোমার আঘাতের ফলে রাস্তার দশ জন মানুষ আহত হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। শুধু তাইনয় আহতদের মধ্যে একজন বারো বছরের কিশোর রয়েছে, এছাড়াও একজন ট্রাফিক পুলিশ এবং এক সাংবাদিকও আহত হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। আহতদের মধ্যে তিনজনের অবস্থা গুরুত্বর বলে জানা গিয়েছে। আহতদের চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এদিকে দুষ্কৃতী হামলার পরে ওই এলাকা পুরো নিরাপত্তা বাহিনী দিয়ে ঘেরাও করে ফেলা হয়েছে। এখনও পর্যন্ত এই হামলার দায় কেউ স্বীকার করেনি বলে জানা গিয়েছে । তবে হামলাকারীদের খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে পুলিশ।

প্রসঙ্গত, কাশ্মীরের স্পেশাল স্ট্যাটাস তুলে নেওয়ার পর এই নিয়ে দ্বিতীয়বার উপত্যকায় নিরাপত্তাবাহিনীর উপর হামলার ঘটনা ঘটল। এর আগে গত সেপ্টেম্বর মাসের ২৮ তারিখ সন্ত্রাসবাদীরা শ্রীনগরে প্রহরারত আরপিএফ জওয়ান দের উপর হামলা চালায়। যদিও সেইবারও নিরাপত্তাবাহিনীর সক্রিয়তায় দুষ্কৃতীদের টার্গেট ব্যর্থ হয়ে যায়। সেদিন শ্রীনগরের নোয়াকাদাল এলাকার ৩৮ নম্বর ব্যাটলিয়নের আরপিএফ জওয়ানদের উপর হামলা চালিয়েছিল বলে জানা গিয়েছে।