কানপুর: জ্বলছে উত্তরপ্রদেশ৷ তাপমাত্রা চল্লিশ ছুঁই ছুঁই৷ তার ওপর রয়েছে রাজনৈতিক উত্তাপ৷ সবমিলিয়ে হাঁসফাঁস অবস্থা রাজ্যের৷ দিনে দুপুরে খুব বেশি বাড়ির বাইরে বেরোচ্ছেন না মানুষ৷ বইছে লু৷ ক্রমশ নিজের মাত্রা ছাড়াচ্ছে পারদ৷ তীব্র তাপ প্রবাহ চলছে উত্তর ও মধ্য ভারত জুড়ে৷ মৌসম ভবন জানাচ্ছে এই পরিস্থিতি চলবে আরও বেশ কয়েকদিন৷

মানুষ তো বটেই, গরমে নাকি অস্থির বিগ্রহও৷ বুঝলেন না তো? মন্দিরে প্রতিষ্ঠিত দেবতার গরম লাগছে এতটাই, যে মন্দিরে থাকতে পারছেন না তিনি৷ এমনই দাবি কানপুরের মন্দিরগুলির পুরোহিতদের৷ তাই বিশেষ ব্যবস্থা করা হয়েছে, যাতে ভগবান এই গরমে সুস্থ থাকতে পারেন৷

মন্দিরে বসানো হয়েছে এসি, কুলার এমনকী ফ্যানও৷ সিদ্ধিবিনায়ক গণেশ মন্দিরের প্রধান পুরোহিত সুরজিত কুমার দুবে জানান, ভগবানেরও গরম লাগে৷ তাঁরাও আর পাঁচটা সাধারণ মানুষের মতই কষ্ট পান৷ তাই মন্দিরের গর্ভগৃহ ঠাণ্ডা করার আয়োজন করা হয়েছে৷ শুধু তাই নয়, তাঁকে হালকা জামাকাপড় পরানো হয়েছে, যাতে অতিরিক্ত ভারি জামা কাপড়ে আরও গরম না লাগে তাঁর৷

তবে সাধারণ ভক্তদের সাদা মনে প্রশ্ন, এই ব্যবস্থা কি ভগবানের জন্য? নাকি পুরোহিতদের স্বার্থে? তারা যাতে মন্দিরের মধ্যে আরামে থাকেন, তাই জনগণের দানের টাকায় আরাম করার এই সুবর্ণ সুযোগ ছাড়েন নি? প্রশ্ন উঠলেও, উত্তর স্বাভাবিকভাবেই মেলেনি৷