স্টাফ রিপোর্টার, বালুরঘাটঃ মেন্টরের গাড়িতে লাগানো হুটার ও নীল বাতিকে কেন্দ্র করে বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে দক্ষিণ দিনাজপুরে। আদতেও নীল বাতি হুটার পাওয়ার অধিকারী কি না তা নিয়ে উঠেছে খোদ শাসক দলের অভ্যন্তরেই। দক্ষিণ দিনাজপুর জেলাপরিষদের কাজকর্ম তদারকির জন্য তৃণমূলের শুভাশিষ পাল ওরফে সোনাকে মেন্টর হিসেবে মনোনীত করেছে রাজ্য সরকার। মেন্টরের দায়িত্ব পেতেই দামী গাড়ি বরাদ্দ হয়েছে তাঁর জন্য। শুধু তাই নয় গাড়িতে হুটার এমনকি মাথায় নীল বাতিও লাগানো হয়েছে।  যা নিয়ে শুরু হয়েছে জোর বিতর্ক।

গত ২৪ জুন থেকে বিতর্কের কেন্দ্র বিন্দুতে জায়গা করে নিয়েছে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা পরিষদ। প্রাক্তণ তৃণমূল নেতা বিপ্লব মিত্রর হাত ধরে জেলাপরিষদের সভাধিপতি সহ মোট দশজন দিল্লিতে গিয়ে সরাসরি বিজেপিতে যোগ দেন। পরবর্তীতে তাঁদের মধ্যে কয়েকজন ফের তৃণমূলে ফিরে এলেও সসভাধিপতি ও পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ সহ কয়েকজন বিজেপিতে থেকে গেছেন। স্বাভাবিক ভাবেই সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকা সত্বেও জেলাপরিষদের দখল নিয়ে শাসকদল বেকায়দায় পড়ে।

এই পরিস্থিতিতে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলাপরিষদের কর্তৃত্ব নিজেদের হাতে রাখতে রাজ্য সরকারকে দিয়ে দলীয় নেতা তথা প্রাক্তন কর্মাধ্যক্ষ শুভাশিস পালকে মেন্টর পদে মনোনীত করে শাসকদল তৃণমূল। আর তারপর থেকেই নতুন করে বিতর্কের শুরু।

অভিযোগ মেন্টর শুভাশিষ পাল তাঁর গাড়ীতে নীল বাতি জ্বালানোর পাশাপাশি হুটার বাজিয়ে ঘুরছেন। বিজেপির তরফে প্রশ্ন উঠেছে জেলা পরিষদের মেন্টর পদাধিকারীরা কি গাড়ীতে নীল বাতি ও হুটার ব্যবহার করতে পারেন কি না। শুধু বিরোধি শিবিরই নয়। একই প্রশ্ন সোশাল মিডিয়াতেও ছড়িয়ে পড়েছে।

জেলার বিজেপি সভাপতি শুভেন্দু সরকার মেন্টর পদে লালবাতি ও হুটারের ব্যবহারকে তীব্র কটাক্ষ করেছেন। তাঁর অভিযোগ স্বয়ং তৃণমূলের কেউই নিয়মের কোন কিছুর তোয়াক্কা করেন না। মেন্টর পদে মনোনীত হয়ে শুভাশিস পাল নিজেকে প্রধানমন্ত্রী অথবা বড় কোন মন্ত্রী ভাবা শুরু করেছেন। নীল বাতি ও হুটার অবিলম্বে খুলে ফেলার দাবিও তুলেছেন বিজেপি সভাপতি। পাশাপাশি তিনি এই হুমকিও দিয়েছেন যে নিজে থেকে সরিয়ে না নিলে খুব অল্প দিনে জনগনই তা খুলে দেবে।

যদিও যাঁকে নিয়ে এই বিতর্ক সেই শুভাশিস পালের অবশ্য কোন প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। সকাল থেকে তাঁর মোবাইলে ফোন করা হলে কখনও রিং হয়ে গেলেও তিনি তা রিসিভ করেন নাই। কখনও আবার তা সুইচ অফ পাওয়া গিয়েছে।

এবিষয়ে জেলাপরিষদের শিক্ষা কর্মাধ্যক্ষ তথা দলনেতা ও ব্লক তৃণমূল সভাপতি প্রবীর রায় জানিয়েছেন যে বিগত দুই মাস ধরে রাজনৈতিক জটিলতায় জেলাপরিষদের কাজকর্ম একপ্রকার বন্ধ হয়ে রয়েছে। সাধারণ মানুষের কথা ভেবে এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে জেলাপরিষদের স্বাভাবিক অবস্থা ফিরিয়ে আনতে শুভাশিস পালকে মেন্টর মনোনীত করা হয়েছে। এক্ষেত্রে তিনি নীল বাতি বা হুটার ব্যবহার করতে পারবেন কি না। সেটা প্রশাসনের দেখার ব্যাপার।