মুম্বই: নাগরিকত্ব নিয়ে সদ্য ব্যাখ্যা দিয়েছেন অক্ষয় কুমার। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সাক্ষাৎকার নেওয়ার পর থেকেই নাগরিকত্ব নিয়ে প্রশ্নের মুখে পড়েছিলেন অভিনেতা। এবার ভাইরাল তাঁর একটি ভিডিও।

শুক্রবারই ট্যুইটারে এক বিশেষ বিবৃতি দিয়ে অক্ষয় কুমার জানান যে তিনি গত সাত বছরে কানাডাতেই যাননি। এরপরই অক্ষয়ের একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। যেখানে, অক্ষয় কুমার বলছেন যে কানাডাই তাঁর বাড়ি। এমনকি কেরিয়ার শেষে তিনি কানাডাতে যাবেন বলেও জানাচ্ছেন। আর এই ভিডিও ভাইরাল হতেই নেট দুনিয়ায় ফের বিতর্ক তাঁকে নিয়ে।

ভাইরাল হওয়ায় ওই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, দর্শকদের উদ্দেশে তিনি বলছেন, ‘টরন্টো আমার বাড়ির মত। ইন্ডাস্ট্রি থেকে অবসর নিলে আমি এখানেই এসে থাকব।’

ভাইরাল ভিডিও থেকে পাওয়া ছবি

এই ভিডিও প্রকাশ্যে আসার পর বিবৃতি দেওয়া সত্বেও সমালোচনার শিকার হন অক্ষয় কুমার। কেউ কেউ বলেন, শুধু খ্যাতি আর টাকা কামানোর জন্যই ভারতে রয়েছেন অক্ষয় কুমার। অনেকে মিথ্যাবাদীও বলেন অক্ষয়কে।

অক্ষয় কুমারের কানাডার নাগরিকত্ব রয়েছে এ বিষয়টি ভারতের এক বড় অংশের মানুষ জানেন৷ সঙ্গে অক্ষয়ের রয়ছে ভারতের ওভারসিজ সিটিজেনশিপ৷ যার ফলে ভারতে U-ভিসা নিয়ে স্থায়ী বসবাস করা এবং কাজের সুযোগ পেলেও ভোটাধিকার এবং কোনও সাংবিধানিক পদে বসার যোগ্যতা নেই অক্ষয়ের৷

সদ্য এই অভিনেতা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সাক্ষাৎকার নেওয়ার পর এই বিষয় নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। বিরোধীরা বলেন, কীভাবে ভারতে ভোটাধিকার না থাকা সত্বেও প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎকার নিচ্ছেন তিনি।

শুক্রবার ট্যুইটারে দেওয়া বিবৃততে অক্ষয় লেখেন, ‘‘আমার কানাডিয়ান পাশপোর্ট রয়েছে এটা আমি কোনদিন গোপন বা অস্বীকার করিনি৷ তবে এটাও ঠিক আমি শেষ সাতবছরে একবারও কানাডা যাইনি৷ আমি ভারতেই কাজ করি এবং সমস্ত ট্যাক্স দিয়ে থাকি৷ এই ক’বছরে আমাকে কখনো কারও কাছে দেশে প্রতি ভালোবাসা প্রমাণ করতে হয়নি৷ আমার নাগরিকতা বিষয়টিকে নিয়ে যেভাবে টানা হেঁচড়া চলছে তাতে আমি হতাশ৷ যদি এসবের পরও ভারতে আরও শক্তিশালী বানানোর জন্য আমি আমার ক্ষুদ্র প্রয়াস করে যাবো৷’’

তিনি আরও বলেন, ‘‘আমি সত্যিই বুঝতে পারছি না আমার নাগরিকতা নিয়ে কিছু মানুষ অযথা কেন উৎসাহী হয়ে পড়েছেন৷ কেনই বা আমার নাগারিকতার বিষয়টি নিয়ে নেগেটিভ ছবি তৈরি করার চেষ্টা করা হচ্ছে৷’’