ফাইল ছবি

আগরতলা: সরকারি হাসপাতালে খরচ দিয়ে চিকিৎসা বিতর্ক ঢাকতে গিয়ে ফের বেফাঁস মন্তব্য ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের। এবার তিনি বলেছেন, কেবলমাত্র অপারেশন থিয়েটার ও জরুরি বিভাগ ছাড়া রোগীর অক্সিজেন লাগে না।

এর আগেও অক্সিজেন নিয়ে অভিনব তত্ত্ব তিনি তুলে ধরে বলেছিলেন, হাঁস জলে সীঁতার কাটলে পুকুর ঝিলে অক্সিজেনের মাত্রা আপনা আপনি বেড়ে যায়। সেই বাড়তি অক্সিজেনটা জলজ প্রাণীদের কাজে লাগে।

রাজ্যের সরকারি হাসপাতালে নিখরচায় রোগীদের চিকিৎসা পরিষেবা তুলে দেওয়ার বিষয়ে বুধবার আগরতলায় সাংবাদিক বৈঠক করেন বিপ্লব দেব। সেখানেই তিনি বিরোধী সিপিএম ও কংগ্রেসের ভূমিকার তীব্র সমালোচনা করেছেন।

মুখ্যমন্ত্রী জানান, সরকারি নোটিশ কী বলা হয়েছে, সেটা পুরোপুরি অনুধাবন না করেই বিরোধীরা অযথা বিতর্ক করছে। সরকার কোনওভাবেই নিখরচায় চিকিৎসা পরিষেবা তুলে দিতে চায় না। তবে যারা এপিএল তালিকাভুক্ত তাদের খরচ দিয়েই সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা করাতে হবে।

এই প্রসঙ্গে তিনি রোগীদের অক্সিজেন সরবরাহ করার বিষটি তুলে ধরে জানান, আগরতলা জিবি হাসপাতালে (গোবিন্দ বল্লভ পন্থ হাসপাতাল) রোগীদের জন্য পাইপলাইনে অক্সিজেন সরবরাহ করার কাজ চলছে। কিন্তু অপারেশন ও এমার্জেন্সি রোগী ছাড়া বাকিদের তো অক্সিজেন লাগে না।

মুখ্যমন্ত্রীর এমন মন্তব্যে হতচকিত হয়ে পড়েন সবাই। পরে চিকিৎসকদের অনেকেই বিস্ময় প্রকাশ করেছেন। তাঁরা জানাচ্ছেন, অনেকে এমন আছেন যাঁরা অপারেশন বা এমার্জেন্সির রোগী নন, তাদেরও অক্সিজেন লাগে।
মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পর থেকে লাগাতার বেফাঁস মন্তব্য করে পরিচিত হয়েছেন বিপ্লব দেব। তাঁর মন্তব্যগুলি বারবার বিতর্ক তৈরি করেছে। মহাভারতের যুগে ইন্টারনেট ও স্যাটেলাইট থাকার কথা তারই মধ্যে বহু চর্চিত।

ত্রিপুরায় সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসা পরিষেবা সবার জন্য নিখরচায় করা সম্ভব নয় বলে সরকারি নোটিশ প্রকাশের পরেই রাজ্য জুড়ে বিতর্ক। সেই বিতর্ক ছড়িয়েছে দেশের অন্যত্র। এর আগে পূর্বতন বামফ্রন্ট সরকার নিখরচায় সবার জন্যই চিকিৎসা সুবিধা চালু করেছিল।

হাসপাতালে চিকিৎসার খরচ তুলে নিতে বিরোধী নেতা তথা প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি লিখেছেন। সরকারি নির্দেশের প্রবল বিরোধিতা করেছে প্রদেশ কংগ্রেস।

এদিকে আগরতলার জিবি হাসপাতালের সামনে ধর্না অবস্থান করেছে বামপন্থী সংগঠনগুলি। আর মিছিল করে প্রতিবাদ জানায় কংগ্রেস। রাজ্যের বৃহত্তর উপজাতি স্বশাসিত এলাকা (এডিসি)-তে গতবারের বামপন্থী বোর্ড জানিয়েছে, উপজাতি এলাকার কোনও সরকারি হাসপাতালে খরচ দিয়ে চিকিৎসা করানো হবে না।

বিরোধী সিপিএম ও কংগ্রেসের দাবি, রাজ্যের বেশিরভাগ মানুষ গরীব। তাঁদের পক্ষে খরচ দিয়ে সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা করানো কঠিন। বিজেপি সরকার কেন এমন সিদ্ধান্ত নিল। আর বিজেপির দাবি, এপিএল তালিকায় থাকা প্রত্যেকেই খরচ দিয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা করাতে হবে।