কলকাতা: শহরে ফের বাড়ছে কন্টেইনমেন্ট জোনের সংখ্যা৷ তিন থেকে বেড়ে হল চার৷ এর আগে এক থেকে বেড়ে তিন হয়েছিল৷ কন্টেইনমেন্ট জোন ফের বাড়তে থাকায় উদ্বেগ বাড়ছে শহরবাসীর৷

এক সময় কলকাতা পুর এলাকায় কন্টেইনমেন্ট জোনের সংখ্যা বাড়তে বাড়তে ৩৯ এ পৌঁছে গিয়েছিল৷ অনেক এলাকায় কার্যত ঘরবন্দি ছিলেন শহরবাসী৷ সেখান থেকে ধীরে ধীরে তারা মুক্ত হন৷ কারণ কন্টেইনমেন্ট জোনের সংখ্যা কমতে কমতে মাত্র একটিতে এসেছিল৷ ফের সেই সংখ্যাটা বাড়তে শুরু করেছে৷ এক থেকে বর্তমানে চারটি কন্টেইনমেন্ট জোন শহরে৷

কলকাতা পুরসভা সুত্রে জানা গিয়েছে, নতুন কন্টেইনমেন্ট জোনের তালিকায় রয়েছে, টালিগঞ্জ, ক্ষুদিরাম পল্লী শখের বাজার,রবীন্দ্র সরোবর ও বালিগঞ্জের কিছু এলাকা৷ নতুন তালিকায় বাদ গিয়েছে গিরিশ পার্ক৷

নতুন তালিকায় রয়েছে কলকাতা পুরসভার ৮ নম্বর বোরোর ৬৯ নম্বর ওয়ার্ডের বালিগঞ্জের ৪, কুইন্স পার্ক৷ এখানকার একটি কমপ্লেক্স এলাকায় সংক্রমণ দেখা দিয়েছে৷ এছাড়া ৮৭ নম্বর ওয়ার্ডের টালিগঞ্জের ১৩৫সি,এস পি মুখার্জি রোডের কমপ্লেক্স এলাকা৷ এবং ৮৭ নম্বর ওয়ার্ডের ২৭,ড: শরৎ ব্যানার্জি রোড৷ এখানকারও একটি কমপ্লেক্স এলাকা৷

এছাড়া কলকাতা পুরসভার ১৬ নম্বর বোরোর ১২৬ নম্বর ওয়ার্ডের ক্ষুদিরাম পল্লী শখের বাজার এলাকা৷ এখানকার ৫৬/১৩ থেকে ৫৬/১৯ ক্ষুদিরাম পল্লী,মনসাতলার একটি বস্তি এলাকায় সংক্রমণ রয়েছে৷

এর আগের তালিকায় কলকাতা পুরসভার গিরিশ পার্ক এলাকায় একটি কন্টেইনমেন্ট জোন ছিল৷ এটি পুরসভার চার নম্বর বোরোর ২৬ নম্বর ওয়ার্ডের ১৩ – ২১ উমেশ দত্ত লেনের মিক্সড এলাকায় সংক্রমণ ছিল৷ বর্তমানে ওই এলাকা কন্টেইনমেন্ট জোন মুক্ত৷

কিছুদিন আগে তিন নম্বর বোরোর ৩১ নম্বর ওয়ার্ডের ৭১/৩ ক্যানাল সার্কুলার রোড সংক্রমিত এলাকা ছিল৷ এছাড়া ৩৪ নম্বর ওয়ার্ডের ইন্টার বারোয়ারি তলা রোড৷ এর মধ্যে একটি কমপ্লেক্স অপরটি ছিল মিক্সড এলাকা৷ নতুন কন্টেইনমেন্ট জোন এর তালিকা থেকে এই এলাকাও বাদ গিয়েছে৷

কলকাতা পুরসভার চার নম্বর বোরোর ২৭ নম্বর ওয়ার্ডের যুগল কিশোর দাস লেন (আমহার্স্ট স্ট্রিট এলাকা)৷ এখানকার মাল্টিপল প্রেমিসেস এলাকা সংক্রমিত ছিল৷ এখন কন্টেইনমেন্ট জোন মুক্ত৷

এছাড়া ৯ নম্বর বোরোর ৭৭,৮২ নম্বর ওয়ার্ড ৷ ৭৭ নম্বর ওয়ার্ডের মনসাতলা লেন( খিদিরপুর এলাকা)৷ ১,সবজি বাগান লেন৷ এবং চেতলা রোড (১৩বি এবং সি)৷ এর মধ্যে চেতলায় একটি বস্তি এলাকা এবং খিদিরপুরের মিক্সড এলাকায় সংক্রমণ ছিল৷ এটাও কন্টেইনমেন্ট জোন মুক্ত৷

কলকাতা পুরসভার ১৬ নম্বর বোরোর ১২৪ নম্বর ওয়ার্ডের ১৭/৬এ থেকে ৮২/১১ সিস্টার নিবেদিতা রোড৷ এবং বড়বাগান সি৫+ডি৫ বিদ্যাসাগর সরণি ও ২৩/২ সুকান্ত সরণি (বড়িশা এলাকা)৷ মাল্টিপল প্রেমিসেস এলাকা৷ নতুন কন্টেইনমেন্ট জোন এর তালিকায় নাম নেই৷

কন্টেইনমেন্ট জোনের সংখ্যা বাড়ার পাশাপাশি কলকাতা এখনও রাজ্যের আক্রান্ত ও মৃতের তালিকায় শীর্ষে রয়েছে৷ তবে মাঝে মাঝে একদিনে নতুন আক্রান্তের চেয়ে তুলনামূলক ভাবে বেশি মানুষ সুস্থ হয়ে উঠছেন৷

মঙ্গলবারের রাজ্য স্বাস্থ্য ভবনের বুলেটিনের পরিসংখ্যান অনুযায়ী,শুধু কলকাতায় ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু হয়েছে ৭ জনের৷ সোমবার এই সংখ্যাটা ছিল ১৯ জনে৷ সব মিলিয়ে শহরে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১,৬০৭ জনে৷
একদিনে কলকাতায় আক্রান্ত ৫৩৪ জন৷ সোমবার ছিল ৫২৮ জন৷ ফলে এই পর্যন্ত শহরে আক্রান্ত মোট ৫১ হাজার ১৮৯ জন৷ এদিনও রাজ্যে মোট আক্রান্ত ও মৃতের জেলা ভিত্তিক তালিকায় শীর্ষে কলকাতা৷

তবে নতুন আক্রান্তের চেয়ে তুলনামূলক ভাবে কম মানুষ সুস্থ হয়ে উঠেছেন শহরে৷ গত ২৪ ঘন্টায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩৪৯ জন৷ সোমবার ছিল ৬২৯ জন৷ সব মিলিয়ে এই পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৪৫ হাজার ২৬২ জন৷

এছাড়া এদিন কলকাতায় অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যাটা ফের বাড়ল৷ তথ্য অনুযায়ী, ৪,১৪২ জন থেকে বেড়ে ৪,৩২০ জন৷ সোমবারের তুলনায় ১৭৮ জন বেশি৷

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।