নয়াদিল্লি: লকডাউনে আটকে পড়া অভিবাসী শ্রমিকদের ঘরে ফেরাতে উদ্যোগী হয়েছে কেন্দ্র। তবে এই ফেরানোর জন্য অভিবাসী শ্রমিকদের ট্রেন ভাড়া নাফ করেনি সরকার। কেন্দ্রের এই নীতিকে তীব্র আক্রমণ করে কংগ্রেস নেত্রী সোনিয়া গান্ধী জানালেন শ্রমিকদের ফেরার ট্রেন ভাড়া দেবে কংগ্রেস।

কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী এই ইস্যুতে রীতিমতো আক্রমণ করেছেন কেন্দ্রকে। তিনি বলেন, ট্রাম্পের গুজরাট সফরের সময় ১০০ কোটি টাকা খরচ করেছে মোদী সরকার। এছাড়া রেলের তরফে ১৫১ কোটি টাকা করোনা মোকাবিলায় দান করা হয়েছে। এরপরেও নিঃস্ব শ্রমিকদের ঘরে ফেড়াতে ট্রেন ভাড়া রেখেছে সরকার। কেন্দ্র সরকারের এহেন ভূমিকাকে ‘বিরক্তিকর’ বলেও অভিহিত করেছেন তিনি।

সোনিয়া গান্ধী জানিয়েছেন, “আমাদের অর্থনীতির মেরুদন্ড” এবং “আমাদের দেশের বিকাশের রাষ্ট্রদূত” শ্রমিকদের ঘরে ফেরার যাবতীয় রেল ভাড়া দেবে কংগ্রেস।

কংগ্রেস সভানেত্রী তার বক্তব্যে প্রশ তুলেছেন, “”যখন আমাদের সরকার বিদেশে আটকা পড়া নাগরিকদের জন্য নিখরচায় বিমান পরিষেবার ব্যবস্থা করতে পারে। যখন গুজরাটে কেবল একটি কর্মসূচির জন্য সরকার প্রায় ১০০ কোটি টাকা ব্যত করতে পারে, তাহলে কেন এই সংকটের সময়ে শ্রমিকদের নিখরচায় রেল পরিষেবা দেওয়া যাবে না? “

পাশাপাশি তিনি উল্লেখ করেছেন, লকডাউন শুরু আগে মাত্র চার ঘণ্টার নোটিশ দিয়েছিল কেন্দ্র। তাই অভিবাসী শ্রমিকেরা তাদের বাড়িতে ফিরে যাওয়ার সুযোগটুকুও পাননি।

কংগ্রেস সভানেত্রী চিঠিতে লিখেছেন, ১৯৪৭ এ দেশ ভাগের পর থেকে এই প্রথম এমন ট্রাজেডির মুখোমুখি হয়েছে দেশ। যখন হাজার হাজার অভিবাসী শ্রমিক খাদ্য ছাড়াই, ওষুধ ছাড়াই, অর্থ ছাড়াই পরিবার এবং প্রিয়জনদের কাছে ফিরে আসতে কয়েকশ কিলোমিটার পায়ে হাঁটতে বাধ্য হয়েছে।

কংগ্রেস নেত্রী জানিয়েছেন, লক্ষ লক্ষ অভিবাসী শ্রমিক তাঁদের বাড়ি ফিরতে চাইছে , কিন্তু টাকা না থাকায় আটকে পড়েছে তাঁরা।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.