নয়াদিল্লি: টানা পেট্রোল-ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে এবার দেশজুড়ে প্রতিবাদে নামছে কংগ্রেস। এছাড়াও দলের সাংসদ, বিধায়ক এবং নেতারা এ বিষয়ে রাষ্ট্রপতি রাম নাথ কোবিন্দের কাছে লিখিত জমা করবেন যাতে এই মূল্যবৃদ্ধি দ্রুত তুলে নেওয়া হয়।

একটি বিবৃতিতে, অল-ইন্ডিয়া কংগ্রেস কমিটির সাধারণ সম্পাদক , সংস্থার ইন-চারজ কে সি ভেনুগোপাল জানিয়েছেন, অপ্রত্যাশিতভাবে বারবার জ্বালানির দাম বাড়িয়ে দেওয়ার প্রতিবাদ চরম হতে চলেছে, করোনা সংকটে সাধারণ মানুষের উপর এইভাবে বলপুর্বক লুঠ চালানোকে তুলে ধরা হবে”।

প্রতিবাদকে আরও বিস্তারিতভাবে তুলে ধরতে জানানো হয়েছে, প্রতিবাদের বিভিন্নরকম প্রোগ্রাম, কেন্দ্রের দ্বারা সাধারণের উপর চাপ যে পরিমাণ চাপ বাড়ানো হচ্ছে তা নিয়ে কংগ্রেস সরব হতে চলেছে হুনের ২৯ তারিখ। ‘কেন্দ্রীয় সরকারের জনবিরোধি নীতি’ নিয়েই সরব হবে কংগ্রেস।

চলতি সপ্তাহে জুনের ৩০ তারিখ থেকে জুলাই ৪ তারিখের মধ্যে দেশের সবস্তরে বিশাল প্রতিবাদ পরিচালনা করতে চলেছে কংগ্রেস। শেষ ২১ দিন থেকে কেন্দ্র টানা পেট্রোল-ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধি করেছে। এই প্রক্রিয়া অতিরিক্ত চাপ তৈরি করছে বলেই জানিয়েছেন তিনি।

আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত তেলের দাম রেকর্ড হারে কমে যাওয়ায় অনেকটাই লাভ করেছে কেন্দ্র, তারপরেও এমন ঘটনা কেমন করে ঘটে চলেছে তা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন তিনি।

সোমবার থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি প্রচার শুরু করছে কংগ্রেস যার নাম ‘স্পিক আপ অন পেট্রোল ডিজেল প্রাইস হাইক’। কৃষক, বাস এবং ট্যাক্সি ড্রাইভার, ট্রান্সপোর্টার, ওলা-উবের ড্রাইভার এবং সাধারণ মানুষের ভোগান্তির কঠা তুলে ধরতে এই প্রচার শুরু করছে কংগ্রেস।

প্রসঙ্গত, রবিবার অন্তত বেশি খরচ করতে হবে না জ্বালানির জন্য এই ভেবেই সুখী থাকছেন সাধারণ মানুষ। কলকাতা, দিল্লি, মুম্বই। সেখানে শনিবারের তুলনায় আর দাম বাড়েনি। রবিবার কলকাতায় পেট্রোলের দাম কিছুটা স্বস্তি দিয়ে থমকেছে। এদিন পেট্রোলের দাম রয়েছে ৮২.০৫ টাকাই। ডিজেলের দামও রয়েছে ৭৫.৫২ টাকা। দাম অপরিবর্তিত। দিল্লিতে ডিজেলের দাম একই রয়েছে , ৮০.৪০ টাকা। পেট্রোলের দাম ৮০.৩৮ টাকা। মুম্বইতে দাম থমকেছে ৮৭.১৪তে। ডিজেল আটকেছে ৭৮.৭১-এ।

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।