নয়াদিল্লি: পরিযায়ী শ্রমিকদের সমস্য়া নিয়ে কেন্দ্রকে বিঁধলেন কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী৷ কেন্দ্রকে বিঁধে তিনি বলেন, ‘পরিযায়ী শ্রমিকদের যন্ত্রণা, কান্না দেখতে গোটা দেশ দেখতে পেলেও তা চোখে পড়ছে না বিজেপির।’ বৃহস্পতিবারই সোশাল মিডিয়ায় ‘SpeakUP India’ শীর্ষক একটি অভিযান শুরু করে কংগ্রেস৷ সেই অভিযানের সূচনায় কেন্দ্রকে কাঠগড়ায় তুলে এমনই মন্তব্য় করেন সোনিয়া৷

করোনা মোকাবিলায় দেশজুড়ে চলা একটানা লকডাউনের জেরে বিভিন্ন রাজ্য়ে লক্ষ-লক্ষ পরিযায়ী শ্রমিক আটকে পড়েছেন৷ ভিনরাজ্যে রুজি-রোজগারের সংস্থান হারিয়ে গত কয়েক সপ্তাহ ধরে দেশের নানা প্রান্তে কোথাও মাইলের পর মাইল হেঁটে কোথাওবা খানিকটা গাড়িতে চেপে নিজেদের রাজ্য়ে ফেরার চেষ্টায় পরিযায়ী শ্রমিকরা৷ এভাবে ফিরতে গিয়ে গত কয়েক সপ্তাহে একাধিক দুর্ঘটনায় প্রাণ গিয়েছে বহু পরিযায়ী শ্রমিকের৷

পরিযায়ীদের সমস্য়া নিয়ে সোশাল মিডিয়ায় দলের নয়া কর্মসূচির সূচনায় কেন্দ্রীয় সরকারের সমালোচনায় সরব হন কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী৷ তাঁর অভিযোগ, ‘স্বাধীনতার পর ভারতবর্ষে সাধারণ মানুষকে এত কষ্ট কোনওদিনও পেতে হয়নি। কোনওদিন খেটে খাওয়া গরিব মানুষ এভাবে খালি পায়ে মাইলের পর মাইল হাঁটেননি৷ শ্রমিকদের এই কষ্ট বিজেপি দেখতে পায় না৷’

লকডাউনের জেরে পরিযায়ী শ্রমিকদের দুর্দশার কথা সোশাল মিডিয়ায় তুলে ধরতে উদ্য়োগ নিযেছে কংগ্রেস৷ সেই লক্ষেই এবার‘SpeakUP India’ শীর্ষক প্রচারাভিযান শুরু করেছে কংগ্রেস। বৃহস্পতিবার এই কর্মসূচির সূচনায় কেন্দ্রের কাছে একাধিক দাবি রেখেছেন সোনিয়া গান্ধী৷ লকডাউনের জেরে গরিব মানুষের দুর্দশা ঘোঁচাতে গরিব পরিবারগুলিকে এখনই এককালীন ১০ হাজার টাকা দেওয়ার দাবি জানিয়েছে কংগ্রেস৷

লোকসভা নির্বাচনের আগে কংগ্রেসের ঘোষিত ‘ন্যায়’ প্রকল্পের ধাঁচে গরিব পরিবারপিছু মাসে সাড়ে সাত হাজার টাকা করে অনুদান দেওয়ারও দাবি উঠেছে৷ ‘SpeakUP India’ শীর্ষক প্রচারাভিযানে গরিব পরিবারকে টাকা পাঠানোর দাবির পাশাপাশি গ্রামাঞ্চলে ১০০ দিনের বদলে ২০০ দিনের কাজও দেওয়ার দাবি জানিযেছেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী৷ রাহুল ছাড়াও দলের এই বিশেষ কর্মসূচিতে এদিন নিজের বক্তব্য রেখেছেন দেশের প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী তথা বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা পি চিদম্বরম।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প