স্টাফ রিপোর্টার, পূর্ব বর্ধমান: প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্বে বদল আনা হয়েছে৷ অধীর চৌধুরীর জায়গায় বসানো হয়েছে সোমেন মিত্রকে৷ তাতে কী হাল ফিরেছে রাজ্য প্রদেশ কংগ্রেসের? কর্মীদের একাংশের মতে, রাজ্যে দলের আগে যা অবস্থা ছিল এখনও তাই আছে৷ বিশেষ কোনও পরিবর্তন যে আসেনি মানছেন শীর্ষ নেতৃত্বও৷

কংগ্রেসের এই শনির দশার জন্য তৃণমূলকেই দায়ী করলেন রাজ্যসভার সাংসদ প্রদীপ ভট্টাচার্য৷ তাঁর অভিযোগ, শাসকদল পুলিশকে কাজে লাগিয়ে কংগ্রেস কর্মীদের ভয় দেখাচ্ছেন৷ তাই এক সময় শক্ত হাতে দলের হাল ধরে থাকা কর্মীরা নিস্তেজ হয়ে পড়েছেন৷

সোমবার পূর্ব বর্ধমান জেলায় কংগ্রেস ভবনে দলীয় কর্মীদের সঙ্গে সভা করেন প্রদীপবাবু৷ সেখানে তিনি জানান, কেন্দ্রের বিজেপি ও রাজ্যের তৃণমূল কংগ্রেসের জনবিরোধী নীতির প্রতিবাদ করতে হবে৷ কিন্তু কংগ্রেসের ঝাণ্ডা ধরার লোক কই? রাজ্যে তো কংগ্রেস এখনও সেই সাইনবোর্ড হয়েই রয়েছে৷ কংগ্রেসের এই দুর্দশার ছবি প্রদীপ ভট্টাচার্যেরও অজানা নয়৷ তাঁর মতে, শাসকদলের ভয় ও প্রলোভন এই দুই কারণে কংগ্রেস নেতা ও কর্মীরা রাজনীতি করার উৎসাহ হারিয়ে ফেলছেন৷

তিনি জানান, শাসকদল পুলিশকে কাজে লাগিয়ে কংগ্রেস কর্মীদের উপর অত্যাচার করছে৷ অনেককে নানা পদ পাইয়ে দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে অন্য দলে টেনে নিচ্ছে৷ তাই অনেকেই কংগ্রেস ছেড়ে শাসকদলের ভিড়েছেন৷ কিন্তু জাতীয় কংগ্রেস নদীর জলের স্রোতের মত৷ অনেকেই আসেন, অনেকেই চলে যান৷ কিন্তু জল তার মতো বয়ে যায়৷ তবে তিনি ইঙ্গিত দেন অনেক পুরানো সহকর্মী ফের দলে ফিরতে চলেছেন৷ রাণী রাসমণির জমায়েতে তাদের হাজির হবেন৷

এই জমায়েত উপলক্ষ্যে পূর্ব বর্ধমান আসা প্রদীপ ভট্টাচার্যের৷ আগামী ১২ ডিসেম্বর রাণী রাসমণিতে বিশাল জমায়েতের ডাক দিয়েছে প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্ব৷ সেই জমায়েত হিট করতে সমস্ত জেলা থেকে কংগ্রেস কর্মীদের হাজিরার লক্ষ্যে ঝাঁপিয়ে পড়েন শীর্ষ নেতারা৷ সোমবার তাই পূর্ব বর্ধমান জেলা কংগ্রেস ভবনে দলীয় কর্মীদের সঙ্গে সভা করেন রাজ্যসভার সাংসদ প্রদীপ ভট্টাচার্য৷

ফাইল ছবি

সেখানে প্রদীপবাবু বিষমদ কাণ্ড থেকে রাফায়েল চুক্তি ইত্যাদি একাধিক ইস্যুতে কংগ্রেস কর্মীদের লাগাতার পথে নেমে আন্দোলনে নামার নির্দেশ দেন। একইসঙ্গে সাধারণ মানুষের সঙ্গে আরও নিবিড় সম্পর্ক গড়ে তোলা, বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিজেপি এবং তৃণমূলের পরিবর্তে কংগ্রেসকে সমর্থন করার কর্মসূচী পালন করারও নির্দেশ দিয়ে যান। তিনি জানান, আগামী ১২ ডিসেম্বর কলকাতার জমায়েত থেকেই নতুনভাবে প্রদেশ কংগ্রেস আত্মপ্রকাশ করবে।