চেন্নাই: করোনা আক্রান্ত কংগ্রেস সাংসদ এবং প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদাম্বরমের পুত্র। নিজেই ট্যুইট করে এমনটাই জানিয়েছেন ক্রান্তি চিদম্বরম। সোমবার তিনি জানিয়েছেন, কোভিড-১৯-এর মৃদু উপসর্গ দেখা গিয়েছে তাঁর শরীরে। আপাতত ক্রান্তি হোম কোয়ারেন্টাইনেই রয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

তিনি লিখেছেন, আমি সদ্য কোভিডের টেস্ট করিয়েছি। সেখানে দেখা গিয়েছে আমি পজিটিভ। আমার সামান্য উপসর্গ রয়েছে এবং চিকিৎসকদের পরামর্শে আমি এখন হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছি। আমি অনুরোধ করছি, যাঁরা আমার সংস্পর্শে এসেছেন তাঁরা এখনই করোনা স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। ভারতে। লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ।

শেষ ২৪ ঘন্টায় দেশে করোনা আক্রান্ত হলেন, ৫২ হাজার ৯৭২ জন। নতুন মৃত্যু হয়েছে আরও ৭৭১ জনের। নতুন করে সংক্রমণের জেরে দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ১৮ লক্ষ ৩ হাজার ৬৯৬ জন। এর মধ্যে অ্যাক্টিভ কেস রয়েছে ৫ লক্ষ ৭৯ হাজার ৩৫৭ টি। দেশজুড়ে মোট সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১১ লক্ষ ৮৬ হাজার ২০৩ টি। দেশজুড়ে মোট মৃত্যু হয়েছে ৩৮ হাজার ১৩৫ জন।

প্রসঙ্গত, রবিবার বেশি রাতে খবর পাওয়া যায় যে করোনা আক্রান্ত হয়েছে কর্নাটকের মুখ্যমন্ত্রী বি এস ইয়েদুরাপ্পা। তাঁর মেয়েও করোনা পজিটিভ জানা গিয়েছে। তার আগে রবিবার সন্ধ্যায় খবর আসে, করোনা আক্রান্ত হয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

তিনিও ট্যুইট করেই জানিয়েছিলেন তাঁর আক্রান্ত হওয়ার কথা। এদিকে রবিবারই উত্তরপ্রদেশ ক্যাবিনেটের মন্ত্রী কমলরানি বরুণের করোনা ভাইরাসে মৃত্যু হয়েছে। এদিকে রাম মন্দিরের ভুমিপুজোর অনুষ্ঠানে ২০০ জনের বেশি উপস্থিত থাকবেন বলেই প্রাথমিকভাবে জানান হয়য়েছিল।

তবে কিছুক্ষণ আগেই জানা যায় যে রাম মন্দির আন্দোলনের অন্যতম মুখ উমা ভারতী ভূমি পুজোর দিন থাকবেন না। করোনা আশঙ্কাতেই সম্ভবত উওমা ভারতী থাকবেন না বলে জানা যাচ্ছে।

অন্যদিকে করোনা আবহে বিদেশ থেকে আসা যাত্রীদের জন্য এদেশে প্রবেশের ক্ষেত্রে গাইডলাইন বেঁধে দিয়েছে কেন্দ্র সরকার। এর আগে ডিরেক্টর জেলারেল অফ সিভিল অ্যাভিয়েশন যে গাইডলাইন দিয়েছিল, তার সঙ্গেই বেঁধে দেওয়া হয়েছে আরও কয়েকটি নিয়ম।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.