স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: ভোট চুরি শেখানোর জন্য তৃণমূল সরকারকে এবার স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় তৈরি করতে হবে৷ বীরভূমে তৃণমূলের সর্বেসর্বা অনুব্রত মণ্ডলের ভোট চুরির নিদানকে এভাবেই খোঁচা দিলেন জেলার কংগ্রেস বিধায়ক মিল্টন রশিদ৷ তিনি বলেন, “এতদিন বাংলা, অঙ্ক, ইংরাজির জন্য মাস্টারের দরকার ছিল৷ এবার তৃণমূল নেতাদের হাত ধরে ভোট চুরি একটা নতুন একটা বিষয় এল৷ এখন থেকে চোর মাস্টার দরকার হবে৷”

বুধবার বীরভূমের পুরান্দরপুরে একটি কর্মী সভায় হাজির ছিলেন অনুব্রত। লোকসভার সেই প্রস্তুতি বৈঠকে দলীয় কর্মীদের একটি চমকপ্রদ বার্তা দিলেন তিনি। অনুব্রতর প্রস্তাব, অনেক বেশি ভোটে জিততে হলে ভোট চুরি করতে হবে। তাঁর এই মন্তব্যের পরই বিরোধী মহলে নিন্দার ঝড় ওঠে৷

হাঁসনের কংগ্রেস বিধায়ক মিল্টন রশিদ কটাক্ষের সুরে বলেন, “পুলিশকে বোমা মারার নিদান দিয়ে কিছু হল না, রাস্তায় উন্নয়ন দাঁড় করিয়েছিল তাতেও কিছু হল না, মদ-মাংস দিয়েও মানুষকে বশে আনতে পারল না তাই বাধ্য হয়ে তৃণমূল নেতারা এখন ভোট চুরির নিদান দিচ্ছেন৷এখন চোরেরাও জানে তৃণমূল তাদের থেকেও বড় চোর৷ তাই তারা তৃণমূল নেতাদের থেকে ভোট চুরির শিক্ষা নিয়ে জনসাধারণের জন্য চুরি করবে৷ পরে তৃণমূল বুঝতে পারবে আদপে কার চুরি গেল৷”

বিজেপি ও সিপিএম আগেই অনুব্রত মণ্ডলের এই মন্তব্যের কড়া নিন্দা করেছে। তাদের বক্তব্য, তৃণমূলের স্বরূপ প্রকাশ্যে চলে আসছে। তাঁরা যে ভোট চুরি করেই জিতেছে, আবারও যে তারা সেই পরিকল্পনা করেই জয়ের ঘুঁটি সাজাচ্ছে, তা অনুব্রত মণ্ডলের কথাতেই পরিষ্কার।