বেঙ্গালুরু: বুধবার রাতে বেঙ্গালুরুর শান্তিনগরে বিস্ফোরণে গুরুতর জখম হলেন স্থানীয় কংগ্রেস বিধায়ক এনএ হরিশ। কংগ্রেসের ওই বিধায়ক ছাড়াও বিস্ফোরণে জখম আরও বেশ কয়েকজন। তামিলনাড়ুর প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী এমজি রামচন্দ্রনের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বুধবার একটি বিশেষ অনুষ্ঠানের আযোজন করা হয়েছিল। রাতে সেখানে উপস্থিত হন স্থানীয় কংগ্রেস বিধায়ক। তিনি পৌঁছনোর কিছুক্ষণের মধ্যেই বিস্ফোরণ ঘটে। আহতদের বেঙ্গালুরুর ফিলোমেনা হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে। তবে বিস্ফোরণের তীব্রতা কম থাকায় বড়সড় ক্ষয়ক্ষতি এড়ানো গিয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, তামিলনাড়ুর প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী এমজি রামচন্দ্রনের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বেঙ্গালুরুর শান্তিনগরে একটি বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। সন্ধে থেকেই অনুষ্ঠানে ভিড় বাড়তে শুরু করে। সন্ধে সাড়ে ৮টার কিছু পরে সেই অনুষ্ঠানে এসে উপস্থিত হন স্থানীয় কংগ্রেস বিধায়ক এনএ হরিশ। তারপরই ঘটে বিস্ফোরণ।

দুষ্কৃতীদের টার্গেট ছিলেন বিধায়কই। এমনই দাবি বিধায়কের ছেলে মহম্মদ নালপদের। তিনি জানিয়েছেন, অনুষ্ঠানে মঞ্চে তাঁর বাবাকে লক্ষ্য করে বোমা ছোড়া হয়েছিল। সেই বোমা ফেটেই বিস্ফোরণ ঘটে। যদিও বিস্ফোরণের তীব্রতা কম থাকায় প্রাণহানি এড়ানো গিয়েছে। আহতদের মধ্যে বিধায়কের আপ্ত-সহায়ক ছাড়াও তাঁর কয়েকজন অনুগামী রয়েছেন।

এদিকে, হঠাৎ করে কে বা কারা কংগ্রেস বিধায়কের উপর হামলা চালাল তা কিন্ত এখনও স্পষ্ট নয়। সরাসরি বিধায়কের পরিবারের তরফেও কারও বিরুদ্ধে স্পষ্ট করে কোনও অভিযোগও আনা হয়নি। প্রত্যক্ষদর্শী বা এমজিআর-এর জন্মবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে উপস্থিত অন্যরাও অতর্কিতে চালানো এই বোমাবাজিতে হতভম্ব। তবে সবদিক খতিয়ে দেখছে পুলিশ। অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকা ব্যক্তিদের সঙ্গেও কথা বলা হচ্ছে। কংগ্রেস বিধায়ক এনএ হরিশের সঙ্গে ব্যক্তিগত পর্যায়েও কারও কোন শত্রুতা ছিল কিনা তা তাঁর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে বুঝে নেওয়ার চেষ্টা করছে বেঙ্গালুরু পুলিশ।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।