ভোপাল: গোয়ালিয়রের সঙ্গে মিশে রয়েছে রাজা রাজরাদের কাহিনী৷ তাই গোয়ালিয়র পুনরুদ্ধারে রাজ পরিবারের সদস্যার উপরই ভরসা রাখতে চাইছে কংগ্রেস৷

বর্তমানে মধ্যপ্রদেশের গোয়ালিয়র লোকসভা আসনটি বিজেপির দখলে৷ হাতের বাঁধন আলগা করে ২০০৭ সাল থেকেই সেখানে মেলেছে পদ্মের পাপড়ি৷ এক যুগ পর তাই গোয়ালিয়র দখলের জন্য ঝাঁপাতে মরিয়া রাহুল ব্রিগেড৷ ওই কেন্দ্র থেকে প্রার্থী করার জন্য প্রদেশ নেতৃত্ব জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার স্ত্রী প্রিয়দর্শিনীকে প্রস্তাব দিয়েছে৷ গোয়ালিয়র শহর ও গ্রামীন কংগ্রেস কমিটি ইতিমধ্যেই এই প্রস্তাব দলের মিটিংয়েও পাস করিয়েছে৷

জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া কংগ্রেস সভাপতি রাহল গান্ধীর ঘনিষ্ট৷ উত্তরপ্রদেশে দলের হাল ধরতে বোনের সঙ্গে রাহুল দায়িত্ব দিয়েছেন গোয়ালিয়র রাজ পরিবারের এই সদস্যের উপরও৷ তাঁকে পশ্চিম উত্তরপ্রদেশে দলীয় সংগঠনের দায়িত্ব দেওয়া হয়৷

দলের হাল সামলে এবারও কী জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া লোকসভায় লড়বেন? জল্পনা ছিল৷ ২০০২ থেকে গুনার সাংসদ তিনি৷ দলের প্রদেশ নেতাদের অনেকেই স্থির করেছিলেন গুনা আসন থেকে জ্যোতি না দাঁড়ালে সেখানে প্রার্থী করা হবে তাঁর স্ত্রী প্রিয়দর্শিনীকে৷ এখন সিদ্ধান্ত হাইকম্যান্ডের উপর৷

জ্যোতিরাদিত্যের প্রচারের দায়িত্বে থাকা কংগ্রেস কর্মী মণীশ রাজপুত জানান, কংগ্রেসের শক্ত ঘাঁটি গুনা৷ এখানকার মানুষকে সিন্ধিয়ারা পরিবারেল সদস্য বলেই মনে করে৷ গুনা থেকে তাই সিন্ধিয়া পরিবারের কেউ দাঁড়ালেই মানুষ আর্শীবাদ করবে৷

গোয়ালিয়রের সাংসদ বিজেপির নরেন্দ্র সিং তোমার কেন্দ্রীয় গ্রামোন্নয়ন ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী৷ তাই হেভিওয়েটকে হারিয়ে গোয়ালির পুনরুদ্ধার, নাকি কংগ্রেস গড় গুনা ধরে রাখার চ্যালেঞ্জ৷ প্রিয়দর্শিনীকে কোন আসনে প্রার্থী করবেন রাহুল সেদিকে নজর দলের নেতা, কর্মীদের৷

চার দফায় ভোট রয়েছে মধ্যপ্রদেশে৷ আগামী ২৩শে মে ভোট গুনা ও গোয়ালিয়র আসনে৷