জামনগর: কয়েকদিন আগেই প্রকাশ্য সভায় সপাটে চড় মারা হয়েছে হার্দিক পটেলকে। পরের দিন ফের হার্দিকের সভায় ঝামেলা। এবার প্রাণসংশয়ে আছে বলে নিরাপত্তা চাইলেন কংগ্রেস নেতা হার্দিক পটেল।

রবিবার জামনগরে তাঁর রোড শো রয়েছে। তার আগেই পুলিশের কাছে নিরাপত্তা চাওয়া হয়েছে। পুলিশ সুপারের কাছে চিঠি লিখেছেন হার্দিক। তাঁর আশঙ্কা, রোড শো-তে কেউ বা কারা তাঁর উপর হামলা চালাতে পারে।

চিঠিতে তিনি লিখেছেন, ‘২১ এপ্রিল সকাল ৯টা থেকে জামনগরে আমার রোড শো রয়েছে। আমার আশঙ্কা, কোনও সমাজ বিরোধী আমার গাড়িতে হামলা চালাতে পারে। যার জন্য আমার মৃত্যুও হতে পারে। তাই জামন্রে পর্যাপ্ত পুলিশি নিরাপত্তার দাবি জানাচ্ছি।

গত শুক্রবার জনসভায় বক্তব্য রাখছিলেন কংগ্রেস নেতা হার্দিক পটেল। আর সেই প্রকাশ্য সভাতেই ছুটে এসে হার্দিককে চড় মারেন এক ব্যক্তি। গুজরাতের সুরেন্দ্র নগরে ঘটেছে সেই ঘটনা।

২৫ বছরের হার্দিক পটেল ২০১৫ থেকে পতিদার সংরক্ষণের জন্য আন্দোলন করছেন। সম্প্রতি কংগ্রেসে যোগ দিয়েছেন তিনি। ভোটের আগে কংগ্রেসের হয়ে প্রচার করছেন গুজরাতের বিভিন্ন জায়গায়।

বৃহস্পতিবার তাঁকে শেষ মুহূর্তে হেলিকপ্টার বাতিল করতে হয়, কারণ এক কৃষক তাঁকে তাঁর জমিতে হেলিকপ্টার অবতরণে বাধা দেন। ফলে অন্তত ১০০ কিলোমিটার রাস্তা তাঁকে গাড়িতে যেতে হয়।

হার্দিক আসায় গুজরাতে অক্সিজেন ফিরে পেয়েছে কংগ্রেস। কারণ, ২০১৪ সালের নির্বাচনে গুজরাতের ২৬ টি আসনেই জয়লাভ করে বিজেপি। তাই হার্দিককে শিখণ্ডী করে গুজরাতে নোঙ্গর ফেলার চেষ্টায় মরিয়া হয়ে উঠেছেন কংগ্রেস সভাপতি। হার্দিকও নির্বাচনে দাঁড়িয়ে যথেষ্ট আশাবাদী।