স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: রাজ্যে আইন-শৃঙ্খলার অবনতির অভিযোগে বৃহস্পতিবার কংগ্রেসের লালবাজার অভিযানকে কেন্দ্র করে ধুন্ধুমার পরিস্থিতির সৃষ্টি হল৷

আব্দুল মান্নান, প্রদীপ প্রসাদের নেতৃত্বে কংগ্রেস কর্মীদের মিছিল বেন্টিক স্ট্রিটের কাছে আটকায় পুলিশ৷ এরপরই পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে জড়িয়ে পড়েন কংগ্রেস কর্মীরা৷ পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, আন্দোলনকারীদের গ্রেফতার করে সঙ্গে সঙ্গেই বিনা শর্তে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে৷

রাজ্য জুড়ে কংগ্রেস কর্মীদের উপর থেকে মিথ্যে মামলা প্রত্যাহার ও চিকিৎসা পরিষেবা স্বাভাবিক করার দাবিতে এদিন ১২টায় লালবাজার অভিযান করে৷ দক্ষিণ কলকাতার প্রাক্তন জেলা সভাপতি প্রদীপ প্রসাদ বলেন, তিনটি ইস্যুতে আমাদের এই লালবাজার অভিযান৷ এক- রাজ্যজুড়ে কংগ্রেস কর্মীদের মিথ্যে মামলায় ফাঁসানোর প্রতিবাদে এবং তাদের উপর থেকে মিথ্যে মামলা প্রত্যাহার করতে হবে, দুই- তৃণমূল-বিজেপির দ্বৈরথে রাজ্যের আইন শৃঙ্খলার চূড়ান্ত অবনতির প্রতিবাদে এবং তিন, চিকিৎসা পরিষেবা স্বাভাবিক করার দাবি জানাচ্ছি আমরা৷

পড়ুন:   গলার নলি কেটে খুন, পরস্পরকে দুষছে বিজেপি-তৃণমূল

ভোটের নিরিখে বাংলায় নিশ্চিহ্ন বামেরা৷ ৪ থেকে কমে ২টি আসনে জয় পেয়েছে কংগ্রেস৷ রাজ্যে কোনও মতে অস্তিত্ব টিকিয়ে রেখেছে হাত শিবির৷ দুবছরের মধ্যেই বিধানসভা ভোট৷ ঘুরে দাঁড়াতে সমসাময়িক ইস্যুকে হাতিয়ার করেই আন্দোলন গড়ে তুলতে মরিয়া প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্ব৷ আন্দোলনেই চাঙ্গা হবে দলের নেতা, কর্মীরা৷ তাই রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে বিধান ভবনের নেতাদের লালবাজার অভিযান বলে মনে করা হচ্ছে৷

তবে কংগ্রেস রয়েছে কংগ্রেসেই৷ আন্দোলন ঘিরেই গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের ছায়া৷ দক্ষিণ কলকাতা কংগ্রেসের নেতৃত্বে অভিযান হলেও সেখানে ছিলেন না প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র৷ দেখা গেল না প্রদীপ ভট্টাচার্যকেও৷ এই কর্মসূচীর ব্যাপারে কোনও মন্তব্য করতে চায়নি বিধান ভবনের কর্তারা৷