নয়াদিল্লি: লোকসভা ভোটের তৃতীয় দফার আগে অব্যাহত শিবির বদল৷ এবার দল বদল করলেন কংগ্রেস নেতা ও প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী কৃষ্ণ কুমার৷ যোগ দিলেন গেরুয়া শিবিরে৷ শনিবার নতুন দলে যোগ দিয়ে গান্ধী পরিবার বিশেষ করে সোনিয়া গান্ধীকে আক্রমণ করেন তিনি৷ তোপ দেগে বলেন, ‘‘ভারতীয় সভ্যতা ও সংস্কৃতি সম্পর্কে কোনও ধারণাই নেই তাঁর৷’’

রাজীব গান্ধী ও নরসিমা রাওয়ের আমলে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ছিলেন কৃষ্ণ কুমার৷ একদা কংগ্রেস অনুগত কৃষ্ণ কুমার সম্পূর্ণ বিপরীত মেরুর রাজনৈতিক মতাদর্শে অবস্থানকারী ভারতীয় জনতা পার্টিতে যোগ দেন৷ দলবদলের সিদ্ধান্তের কারণ হিসাবে তিনি সোনিয়া ও গান্ধী পরিবারকে দায়ী করেন৷ জানান, রাহুল ও সোনিয়া গান্ধীর নেতৃত্বের উপর কোনও আস্থা নেই তাঁর৷ প্রধানমন্ত্রী নরসিমা রাওয়ের মৃত্যুর পর সোনিয়া গান্ধীর নির্দেশে কংগ্রেস তাঁর প্রতি যে অবিচার করেছে সেই নিয়েও মুখ খোলেন কৃষ্ণ কুমার৷ বলেন, ‘‘নরসিমা রাওয়ের মৃত্যুর পর তাঁর প্রতি চরম অসম্মান দেখানো হয়৷ প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর মৃত্যুর পর তাঁর দেহ দলের সদর দফতরে ঢোকানো পর্যন্ত হয়নি৷’’

এরপরই সোনিয়ার প্রতি আক্রমণের ঝাঁঝ বাড়ান৷ জানান, প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতির ভারতীয় সভ্যতা ও সংস্কৃতি সম্পর্কে কোনও সম্যক ধারণা নেই৷ এই সব নানা কারণে তিনি কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগদানের সিদ্ধান্ত নেন৷ নতুন দলে যোগ দিয়ে নরেন্দ্র মোদীর কাজের প্রশংসা করেন৷ জানান, রাজনীতিতে যতদিন থাকবেন ততদিন বিজেপি ও নরেন্দ্র মোদীর অনুগত সৈনিক হয়ে কাজ করবেন৷ কৃষ্ণ কুমারের মতে, দেশের জনগণ আগামী ১০ বছরের জন্য নরেন্দ্র মোদীর হাতে দেশের ভার তুলে দেবেন৷

লোকসভা ভোটের সময় কংগ্রেসের একের পর এক নেতা ও নেত্রী দল ছাড়ছেন৷ আর শেষ দু’দিনে দু’জন কংগ্রেস নেতা ও নেত্রী দল ছেড়েছেন৷ শুক্রবার রাহুল গান্ধীর হাত ছেড়েছেন দলের মুখপাত্র প্রিয়াঙ্কা চতুর্বেদী৷ যোগ দেন শিবসেনাতে৷ আর এদিন দল ছাড়েন কৃষ্ণ কুমার৷