স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: সেন্সাস বা জনগণনার কাজের আমরা বিরোধী নই। কিন্তু সেন্সাসের সঙ্গে এনপিআর করার জন্যও চাপ তৈরি করে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করেছে মোদী সরকার। আমাদের মুখ্যমন্ত্রীরা এনপিআর নিয়ে আপত্তির কথা জানাবার জন্যই মুখ্যসচিবদের পাঠিয়েছেন ওই বৈঠকে। এনপিআর নিয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের বৈঠকে কংগ্রেসের প্রতিনিধি পাঠানোর এই ব্যাখা দিলেন কংগ্রেসের বর্ষীয়ান নেতা তথা প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদম্বরম৷

শনিবার বিধানভবনে সাংবাদিক বৈঠকে চিদম্বরম বলেন, ‘বৈঠকে যোগ দেওয়া মানেই সহমত হওয়া নয়।’চিদম্বরমের কথায়, ‘কোনও বৈঠকে যোগ দেওয়া মানেই সম্মতি জানানো নয়। এনপিআর নিয়ে আপত্তির কারণ জানতে কেন্দ্র রাজ্যের আধিকারিকদের বৈঠকের জন্য আমন্ত্রণ জানিয়েছিল। এ ক্ষেত্রে জনগণনা আধিকারিকের বক্তব্য শোনার জন্য রাজ্যের আধিকারিকরা বৈঠকে গিয়েছিলেন একইসঙ্গে নিজেদের উদ্বেগের বিষয়টিও তা সেখানে জানিয়েছেন। এটাই সঠিক পদ্ধতি।’ তিনি বলেন, আমরা নিশ্চিত, মুখ্যসচিবদের কাছ থেকে বৈঠকের রিপোর্ট নিয়ে আমাদের কোনও মুখ্যমন্ত্রী তাঁদের রাজ্যে এনপিআর চালু করবেন না। এনিয়ে অযথা বিভ্রান্তি ছড়ানো অর্থহীন।

উল্লেখ্য, ওই বৈঠকে কংগ্রেস প্রতিনিধি পাঠানোয় বিরোধী রাজনৈতিক মহলে সমালোচনার ঝড় ওঠে। কংগ্রেসের তরফে এনপিআর-এর বিরোধিতা করা হলেও কেন তাদের শাসিত রাজ্যগুলি কেন্দ্রীয় বৈঠকে প্রতিনিধি পাঠাল, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। শনিবার কলকাতায় সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে এই ইস্যুতে অবস্থান স্পষ্ট করলেন চিদম্বরম।

এনআরসি-সিএএ-এনপিআর নিয়ে কংগ্রেসের নিচুতলার নেতা-কর্মীদের মধ্যেও বিস্তর প্রশ্ন রয়েছে। বিশেষ করে বিজেপি’র পাল্টা প্রচার কৌশলের মোকাবিলায় তাঁরা কীভাবে মোদি সরকারকে আক্রমণ করবেন, সে বিষয়ে তাদের মধ্যে মতপার্থক্যও রয়েছে। এই অবস্থায় বাংলায় দলের এমপি, এমএলএ, জেলা ও গণসংগঠনের সভাপতি সহ প্রদেশ কংগ্রেস কমিটির সদস্যদের গোটা বিষয়টি বোঝানোর পাশাপাশি প্রচারের সুর বেঁধে দিতে একদিনের প্রশিক্ষণ দেন চিদম্বরম।

বিরোধীরা এই ইস্যুতে মানুষকে ভুল বোঝাচ্ছে বলে প্রধানমন্ত্রী তোপ দাগায় তাঁকেই এদিন পাল্টা চ্যালেঞ্জ ছোঁড়েন চিদম্বরম। তিনি বলেন, আমি মোদী সাহেবকে বলছি, আমাদের নয়, আপনি আপনার পছন্দমতো যে কোনও পাঁচজন সমালোচক, বিশিষ্ট বুদ্ধিজীবীর মুখোমুখি বসে সব প্রশ্নের উত্তর দিন। সেই প্রশ্নোত্তর পর্ব দেশের মানুষ টিভিতে সরাসরি দেখুক। তারপর তারা যা বিবেচনা করার, করুক। সুপ্রিম কোর্টে এই ইস্যুতে একাধিক মামলা হওয়া প্রসঙ্গে তাঁর বক্তব্য, মোট সংখ্যা বা কারা মামলাকারী, এব্যাপারে সেটা গুরুত্বপূর্ণ নয়। গুরুত্বপূর্ণ হল, মামলার গুণগত মান এবং সওয়ালকারীদের ভূমিকা।