শ্রীনগর: ঐতিহ্যবাহী জামিয়া মসজিদে নমাজ পড়া আপাতত বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জম্মু কাশ্মীরের প্রশাসন৷ নতুন করে শ্রীনগরে উত্তেজনা ছড়ায় সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসাবে এই সিদ্ধান্ত৷ তাই সকাল থেকে মসজিদের সামনে মোতায়েন করা হয় নিরাপত্তা বাহিনী৷ বন্ধ করে দেওয়া হয় মসজিদের সব গেট৷ মীরওয়াজ উমর ফারুককে ঘরবন্দি করে রাখা হয়েছে৷ প্রত্যেক শুক্রবার যিনি মসজিদে ধর্মীয় উপদেশ দিয়ে থাকেন৷ পাশাপাশি মসজিদের আশেপাশের এলাকায় বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে৷

বৃহস্পতিবার জঙ্গি নিধন অভিযান চলাকালীন শ্রীনগরের অদুরে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে প্রাণ হারান এক কাশ্মীরি৷ ঘটনার প্রতিবাদে এদিন বনধ ডাকে বিচ্ছিন্নতাবাদীরা৷ তারপর থেকেই আবারও উত্তপ্ত হয়ে ওঠে শ্রীনগর৷ ট্যুইট করে হুরিয়ত কনফারেন্স নেতা মীরওয়াজ এই সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিবাদ জানান৷ লেখেন, চলতি বছরে এই নিয়ে ১৫বার মসজিদের দরজা বন্ধ করে দেওয়া হল৷

এদিকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে জম্মু কাশ্মীরের লিবারেশন ফ্রন্ট চেয়ারম্যান মহম্মদ ইয়াসিন মালিককে প্রিভেনটিভ কাস্টডিতে নেয় নিরাপত্তা বাহিনী৷ তবে বনধের জেরে শ্রীনগরের অধিকাংশ জায়গায় দোকান, শিক্ষা ও ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান, পরিবহন সব বন্ধ রাখা হয়৷ জামিয়া মসজিদে জমায়েত ও প্রার্থনা অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ রাখা হয়৷

এই প্রথম নয়৷ এর আগেও উত্তেজনার মুহূর্তে মসজিদ বন্ধ রাখা হয়৷ হিজবুল কমান্ডার বুরহান ওয়ানির মৃত্যুর পর জামিয়া মসজিদে নমাজ পড়া বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয় কর্তৃপক্ষ৷ ১৯ সপ্তাহ পর ফের মসজিদে প্রার্থনার অনুমোদন দেওয়া হয়৷