ভোপাল: ইতিমধ্যেই দলত্যাগ করেছেন ২২ জন কংগ্রেস বিধায়ক। বাকিদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী কমল নাথ। কংগ্রেস সরকারের অবস্থা খুব একটা ভালো নয়। সরকার বাঁচানো সম্ভব হবে না বলেই মনে করছেন রাজনীতিবিদরা। এই অবস্থায় বিধায়কদের রাজ্যের বাইরে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন কমল নাথ।

সূত্রের খবর, বুধবারই তাঁদের রাজ্যের বাইরে নিয়ে গিয়ে রাখা হবে। ছত্তিসগড় বা রাজস্থানে নিয়ে যাওয়া হবে বলে জানা গিয়েছে।

জানা গিয়েছে, এদিনের বৈঠকে কমল নাথ কে কংগ্রেস বিধায়করা বলেছেন যাতে তাঁদের এক জায়গায় রাখার ব্যবস্থা করা হয় ও দলত্যাগ করা বিধায়কদের ফেরানোর একটা শেষ চেষ্টা করা হয়।

এদিকে, মঙ্গলবার বিজেপিতে যোগ দিলেন না সিন্ধিয়া। তিনি বুধবার যোগ দেবেন বলে জানা গিয়েছে। আবার বুধবারই রাজ্যসভার প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করবে বিজেপি।

নাটক শুরু হয়েছে সোমবার থেকে। আচমকা বেপাত্তা হয়ে যান সিন্ধিয়া সহ বেশ কয়েকজন বিধায়ক। তারপরই মধ্যপ্রদেশের রাজনীতি নতুন মোড় নেয়। কমলনাথ সরকারের পায়ের তলা থেকে মাটি সরে যায়। মঙ্গলবারই নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে দেখা করার পর আনুষ্ঠানিকভাবে কংগ্রেস ছাড়ার কথা জানিয়ে দেন সিন্ধিয়া পরিবারের এই তরুণ নেতা।

এর কিছুক্ষণ পরই কংগ্রেসের তরফ থেকে জানানো হয়, দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে জোতিরাদিত্য সিন্ধিয়াকে। বর্ষীয়ান নেতা কেসি বেনুগোপাল একথা জানিয়েছেন। দল বিরোধী কাজের জন্য তাঁকে বহিস্কার করা হয়েছে বলে দাবি কংগ্রেসের।

মঙ্গলবার সকালে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে দেখা করতে তাঁর বাসভবনে যান জ্যোতিরাদিত্য। সঙ্গে ছিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। দফায় দফায় বৈঠক হয় তাঁদের মধ্যে। জানা যাচ্ছে, বৈঠকে মধ্যপ্রদেশ থেকে বিজেপির রাজ্যসভার প্রার্থী সিন্ধিয়াকে করা হতে পারে বলে ঠিক করা হয়েছে।