স্টাফ রিপোর্টার, তমলুক: পঞ্চায়েত ভোটের সন্ত্রাসের কথা আজও যেন মানুষ ভুলতে পারেনি৷ প্রিয়জনদের মৃত্যুর হাহাকার আজও তাঁদের তাড়া করে বেরায়৷

একদিকে শাসক দলের নেত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের বিভিন্ন প্রকল্পের উপকারিতা যেমন সাধারণ মানুষ অস্বীকার করতে পারছে না৷ তেমনি আবার নিজেদের ভোট না দিতে পারার বিষয়টিও ভুলতে পারছেন না। সেই সঙ্গে দোসর রয়েছে গত নির্বাচনের সন্ত্রাস৷

বিরোধী সিপিএম প্রার্থীকে নিজেদের কাছে পেয়ে ক্ষোভ উগড়ে দিলেন তমলুকের সাধারণ জনগণ৷ এখন মনের মধ্যে প্রবল সংশয় থেকে গিয়েছে। এবারে ভোট দেওয়া যাবে তো? নাকি আবার সেই একই চিত্র দেখা যাবে লোকসভা নির্বাচনের ক্ষেত্রেও। তমলুক লোকসভা কেন্দ্রের সিমিএম প্রার্থী ইব্রাহিম আলি বৃহস্পতিবার প্রচারে নামেন৷ এলাকার বাড়ি বাড়ি গিয়ে তিনি ভোটের আবেদন জানান৷ তাঁকে কাছে পেয়ে সাধারণ মানুষ বলেন, ‘‘আমরা এবার আমাদের ভোট দিতে পারবো তো?’’

তাঁদের দাবি, গত নির্বাচনগুলিতে রাজ্যে সন্ত্রাস চালিয়ে ভোট লুট করেছে শাসকদল৷ তাতে এই নির্বাচনে তারা ভোট দিতে পারবে কি না তা নিয়ে সংশয়ে রয়েছেন। তাই সিপিএমের প্রার্থীকে নিজেদের কাছে পেয়ে একপ্রকার আবেদন জানান সাধারণ মানুষ৷

যদিও বা পঞ্চায়েত ভোটের সময় শাসক দলের বিরুদ্ধে বারবার সন্ত্রাসের অভিযোগ করেছে বিরোধীরা৷ আর সেই অভিযোগ প্রতিবারই অস্বীকার করা হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে৷ বরং সেই সময় তৃণমূল নেত্রী দাবি করেছিলেন পঞ্চায়েত ভোটে যত গোলমাল হয়েছে, তাতে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়েছিলেন তৃণমূল কর্মীরা৷ যাঁরা পঞ্চায়েতের গোলমালে মারা গিয়েছেন, তাঁদের অধিকাংশই তৃণমূল কর্মী৷ আর এর জন্য তিনি দুষেছিলেন বিজেপিকে৷