নয়াদিল্লি : ৭৪ তম স্বাধীনতা দিবসে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বক্তব্যে উঠে এল জম্মু কাশ্মীরের রাজনৈতিক পরিস্থিতির প্রসঙ্গ। এদিন লালকেল্লায় দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন জম্মু কাশ্মীরের সীমানা চিহ্নিতকরণ শেষ হলেই নির্বাচন করা হবে উপত্যকায়। খুব তাড়াতাড়িই সেই কাজ সম্পন্ন করা হবে।

জম্মু কাশ্মীর দ্রুত তার নিজের মুখ্যমন্ত্রী ও বিধায়কদের পাবে বলে এদিন প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেন এরই সাথে লেহ-লাদাখের উন্নয়ন করা হবে। এটা কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের প্রতিশ্রুতি। এজন্য কেন্দ্র সরকার গোটা উপত্যকার কাছে দায়বদ্ধ। লেহ লাদাখের জন্য একাধিক উন্নয়নমূলক প্রকল্প নেওয়া হয়েছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন জম্মু কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার করে নেওয়ার পর থেকেই উন্নয়নের মুখ দেখেছে কাশ্মীর। মোদী বলেন এই এক বছরে মানবাধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে কাশ্মীরে। মহিলা ও দলিতরা নতুন জীবন পেয়েছেন উপত্যকায়। এই এক বছর জম্মু কাশ্মীরে উদ্বাস্তুরাও নতুন সম্মানের সঙ্গে বাঁচতে শিখেছেন।

এরই মাঝে কাশ্মীরের শের ই কাশ্মীর স্টেডিয়ামে স্বাধীনতা দিবসের বক্তব্য রেখেছেন উপত্যকার নতুন লেফটেন্যান্ট গভর্নর মনোজ সিনহা। তিনি কাশ্মীরে শান্তি, প্রগতি ও সামাজিক ঐক্যতার বার্তা দিয়েছেন। এদিন লাল কেল্লায় মোদী বলেন শুধু Make In India নয়, এবার থেকে Make For the World-এর কথাও ভাবতে হবে।

অর্থাৎ প্রধানমন্ত্রীর কথায়, শুধু আমদানি বন্ধ করা নয়, দেশে জিনিসপত্র তৈরি করে বিদেশ রফতানি করতে হবে ভারতকে। এদিন স্বাধীনতা দিবসে সেই সংকল্পই নিতে বলেন তিনি। কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার করে কেন্দ্র জানায়, কাশ্মীর থেকে হিংসা দূর করাই কেন্দ্র সরকারের কাছে প্রথম চ্যালেঞ্জ৷ একটাও যাতে প্রাণহানি না হয়, তার জন্য সদা সচেষ্ট সরকার৷

২০১৬ সালে বুরহান ওয়ানির মৃত্যুর পর উত্তপ্ত হয়ে ওঠে কাশ্মীর৷ সেই পরিস্থিতি আর চায় না কেন্দ্র৷ সন্ত্রাসকে সমূলে বিনাশ করাই কেন্দ্রের লক্ষ্য৷ কেন্দ্রের মতে কাশ্মীর এখন অনেক শান্ত৷ বিশ্বকে ভারত বুঝিয়ে দিয়েছে, সদর্থকভাবে চাইলে যে কোনও সমস্যার সমাধান সম্ভব৷

কোনও তৃতীয় শক্তির কাছে মাথা নত না করেই ভারত কাশ্মীরকে শান্ত করেছে, এখানেই মোদী সরকারের সাফল্য৷ গত তিন দশকে ৪২ হাজারের বেশি মানুষ মারা গিয়েছেন কাশ্মীরে৷ সেই মৃত্যু মিছিল বন্ধ করতে চেয়েছে ভারত৷ কাশ্মীরকে দেশের অন্যান্য প্রান্তের মতই এক স্বাভাবিক জীবন উপহার দিতে চেয়েছে৷ সেই লক্ষ্যে এখন সফল মোদী সরকার৷

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও