নয়াদিল্লি: বাজেটের দিনে বড় ধাক্কা। শনিবার সকালে দাম বাড়ল বাণিজ্যিক গ্যাস সিলিন্ডারের। একধাক্কায় প্রত্যেক কমার্শিয়াল এলপিজির দাম বাড়ল ২২৪ টাকা ৯৮ পয়সা। যার ফলে এলপিজি কেনার ক্ষেত্রে দাম দিতে হবে ১৫৫০ টাকা।

গত তিনমাসে দ্বিগুনেরও বেশি গ্যাসেরও দাম বেড়েছে। নভেম্বরে যে বাণিজ্যিক গ্যাসের দাম ছিল ৭১৬ টাকা ফেব্রুয়ারির প্রথম দিনেই সেই দাম বেড়ে হল ১৫৫০ টাকা। তবে একধাক্কায় না, ধাপে ধাপে বেড়েছে দাম। ডিসেম্বরে ৭১৬ টাকা থেকে বেড়ে হয় ১২৯৫ টাকা ৫০ পয়সা। জানুয়ারিতে দাম হয় ১৩২৫ টাকা আর ফেব্রুয়ারির শুরুতে সেই দাম দাঁড়াল ১৫৫০-এ।

মনে রাখা দরকার বাণিজ্যিক সিলিন্ডারের দাম বৃদ্ধি হলেও বাড়ির সিলিন্ডারের ক্ষেত্রে একই দাম রয়েছে। গৃহস্থ ক্ষেত্রে এলপিজির মূল্য রয়েছে ৭৪৯ টাকা। এর মধ্যে ২৩৮.১০ টাকা ভর্তুকি হিসেবে অ্যাকাউন্টে পান গ্রাহক।

অন্যদিকে শনিবারের বাজেটে দাম কমানো হয়েছে চিনির। ফলে আপাতত চিনি নিয়ে আর চিন্তার কারণ নেই মধ্যবিত্তের সংসারে। তবে শুধু চিনি না বাজেটে দাম কমেছে সয়াবিন ফাইবারেরও।

মোদী সরকার বর্তমানে বছরে পরিবার পিছু ১২ টি সিলিন্ডারের ক্ষেত্রে ভর্তুকি দেয়। ১২ টি সিলিন্ডারের বেশি যদি কোনও পরিবারের সিলিন্ডার দরকার হয়, তাহলে সেই পরিবারকে কিনতে হয় বাজার দামেই, সেক্ষেত্রে কোনও প্রকার ভর্তুকি পাওয়া যায় না।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।