পাতিয়ালা: রঞ্জির নক-আউটের টিকিট হাতে পেয়ে রীতিমতো উচ্ছ্বসিত বাংলা অধিনায়ক অভিমন্যু ঈশ্বরন। দলের সামগ্রিক পারফর্ম্যান্সে যারপরনাই খুশি তিনি। বিশেষ করে সঠিক সময়ে দল জ্বলে ওঠায় তৃপ্ত শোনাল ঈশ্বরনকে। তবে পঞ্জাবের বিরুদ্ধে শেষ ম্যাচে দুরন্ত জয়ের জন্য মনোজ তিওয়ারিকে আলাদা করে কৃতিত্ব দিলেন অভিমন্যু। সঙ্গে স্বীকার করে নিলেন শাহবাজ আহমেদের অবদান।

সন্দেহ নেই যে এ-পর্যন্ত চলতি রঞ্জি অভিযানে বাংলার অন্যতম স্তম্ভ হয়ে দেখা দিয়েছেন শাহবাজ। প্রয়োজনের সময় ব্যাটে-বলে নির্ভরতা দিয়েছেন দলকে। পঞ্জাবের বিরুদ্ধে দুই ইনিংস মিলিয়ে ১১টি উইকেট নিয়েছেন তিনি। তবে মনোজ তিওয়ারির কৃতিত্বকে খাটো করা যাবে না কোনওভাবেই।

চলতি রঞ্জি ট্রফিতে দুরন্ত ফর্মে রয়েছেন প্রাক্তন বাংলা অধিনায়ক। কেরিয়ারের একমাত্র ট্রিপল সেঞ্চুরি করে একটি ম্যাচে দলকে কার্যত একার হাতে জয় এনে দিয়েছেন তিনি। এবার পাতিয়ালার ঘূর্ণি পিচে মহীরুহ হয়ে দেখা দেন তিওয়ারি। দুই ইনিংসে মনোজ অনবদ্য হাফ-সেঞ্চুরি না করলে বাংলার পক্ষে জয় তুলে নেওয়া কোনওভাবেই সম্ভব হতো না। প্রতিকূল পিচ ও পরিস্থিতিতে বাকি সব ব্যাটসম্যানরা যখন ব্যর্থ হয়েছেন, মনোজ একা ব্যতিক্রমী হয়ে জ্বলে উঠেছেন ব্যাট হাতে। সে কারণেই শাহবাজকে টপকে ম্যাচের সেরা হয়েছেন তিনি।

জয়ের পর ঈশ্বরন বলেন, ‘মনোজ (ভাইয়া) যে কোনও পিচে রান করতে পারে। এখানে ও নিজের অভিজ্ঞতা কাজে লাগাল দারুণ ভাবে। সব ব্যাটসম্যানরা যখন স্পিন সামলাতে হিমশিম খাচ্ছিল, মনোজ (ভাইয়া) দারুণ ব্যাট করল এখানে। আমরা ভাগ্যবান ওর মত ব্যাটসম্যানকে দলে পেয়েছি।’

মনোজে মজে বাংলা কোচ অরুণ লালও। জয়ের পর তিনি বলেন, ‘মনোজ পেশাদার ক্রিকেটার। ও সবরকমভাবে পরীক্ষিত, প্রতিভাবান ভারতীয় ক্রিকেটার। এমন কঠিন পিচে ও দু’টো অসাধারণ ইনিংস খেলল। ঘূর্ণি পিচে মনোজের থেকে ভালো ব্যাটসম্যান ভারতে আর নেই।’

বাংলা কোয়ার্টার ফাইনালে জায়গা করে নেওয়ার পর দলকে অভিনন্দন জানিয়েছেন সিএবি প্রেসিডেন্ট অভিষেক ডালমিয়া। একইসঙ্গে তিনি নকআউটের জন্য ঈশ্বরনদের শুভকামণা জানিয়েছেন। ডালমিয়ার মতে, বর্তমান বাংলা দলে তারুণ্য ও অভিজ্ঞতার দারুণ ভারসাম্য রয়েছে। নতুনদের উঠে আসার পিছনে বর্তমান বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের ভিশন-২০২০’র অবদান আছে বলে মনে করেন অভিষেক।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ