ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: করোনায় আক্রান্ত হয়ে রাজ্যের সুন্দরবন উন্নয়নমন্ত্রী মন্টুরাম পাখিরা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এরই মধ্যে তাঁর ‘মৃত্যু’ হয়েছে জানিয়ে শোকবার্তা প্রকাশ করা হয় নবান্নের তরফে। অথচ মন্ত্রী বেঁচে রয়েছেন। শোকবার্তাটি প্রকাশ্যে আসতেই বিতর্ক তৈরি হয়। মুখ্যমন্ত্রীর দফতরের দায়িত্বজ্ঞান নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন রাজ্যের মন্ত্রী মন্টুরাম পাখিরা। সেখানেই তাঁর চিকিৎসা চলছে। এদিকে তাঁর ‘মৃত্যু’ হয়েছে বলে সোশ্যাল মিডিয়ায় খবর ছড়িয়ে পড়ে। সঙ্গে-সঙ্গে রাজ্যের তথ্য ও সংস্কৃতি তরফেও বিবৃতি জারি করা হয়। মন্টুরাম পাখিরার পরিবারের উদ্দেশ্যে শোকপ্রকাশ করে তাঁদের পাশে থাকার বার্তা দেওয়া হয়। শুধু তাই নয়, পরিবারকে শোকবার্তা পাঠানো হয় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তরফেও।

এরপরই চাঞ্চল্য ছড়ায়। যদিও নিজেদের ভুল বুঝতে পেরে দ্রুত সেই বিবৃতি তুলেও নেয় সংশ্লিষ্ট দফতর। রাজ্যের মন্ত্রীর শোকবার্তা প্রকাশের আগে তথ্য সংস্কৃতি দফতর সেই খবর সম্পর্কে কেন নিশ্চিত হল না তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। যদিও এব্যাপারে কোনও প্রতিক্রিয়া দেয়নি নবান্ন।

প্রসঙ্গত, করোনাভাইরাস পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসায় মন্টুরাম পাখিরাকে বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার রাত ৯টা নাগাদ তিনি হঠাৎই অসুস্থ বোধ করেন এবং সংজ্ঞাহীন হয়ে পড়ে যান।

তাঁকে সঙ্গে সঙ্গে নিয়ে যাওয়া হয় কাকদ্বীপ সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতালে। সেখানে তাঁর প্রাথমিক চিকিৎসার পর করোনা পরীক্ষা করানো হয়। রাতেই রিপোর্ট পজিটিভ এলে তাঁকে ভর্তি করা হয় বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।