শেখর দুবে, কলকাতা: নীলরতন সরকার মেডিকেল কলেজের মেইন গেটের পাশেয় ত্রিপল টাঙানো রয়েছে। সুরক্ষা ও দোষীদের শাস্তির দাবিতে এখানেই আন্দোলনে বসেছেন জুনিয়র ডাক্তাররা। ঠিক তার পাশের দেওয়ালে টাঙানো আহত ইন্টার্ন ডাক্তার পরিবহর ছবি। নীচে প্রচুর সই সহ দুটো পোস্টার লাগচ্ছেন একজন। প্রশ্ন করে জানা গেল ওর নাম সৌম এসেছে উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ থেকে। সঙ্গে বন্ধু আসিফ ও ওদের দীপাঞ্জন স্যার।

উত্তরবঙ্গ থেকে প্রচুর চিকিৎসকদের সই সংগ্রহ করে NRS এ আন্দোলনরত ডাক্তারদের সমর্থন জানাতে এসেছেন ডাক্তারি পড়ুয়া এবং সিনিয়র ডাক্তাররা। আন্দোলনকারী ডাক্তারদের সামনে দাঁড়িয়ে দীপাঞ্জন বাবু বললেন, “আই এই NRS এ প্রাক্তনী, এখন উত্তরবঙ্গে কর্মরত। আমরা তোমাদের পাশে আছি। সুস্থ থাকো তোমরা সবাই, সাবধানে থাকো।”

সঙ্গে সঙ্গে হাততালি দিয়ে উৎসাহ প্রকাশ করলেন আন্দোলনকারী চিকিৎসকরা। এভাবেই ছ’দিন ধরে অনেকে এসেছেন অনেকে আসছেন। রাজ্যের শাসক দলের রক্তচক্ষুকে উপেক্ষা করে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন জুনিয়র ডাক্তাররা।

 

দীপাঞ্জন বাবুদের দেখে আন্দোলনকারীদের আশেপাশে থাকা রোগীর পরিবারের মধ্যে কয়েকজন বলাবলি করলেন, “এরা উত্তরবঙ্গ থেকে চলে এলে আর উনি ( রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী) নবান্ন থেকে আসতে পারলেন না? এসে কথা বলে নিলেই তো ঝামেলা মিটে যায়।” কীরকম যেন অসহায় দেখাল রোগীর আত্মীয়দের মুখগুলো। ছ’দিন হয়ে গেছে NRS সহ রাজ্যের বিভিন্ন হাসপাতালে জুনিয়র ডাক্তাররা ও নার্সরা কর্মবিরতিতে রয়েছেন। ইস্তফা দিয়েছেন সিনিয়র চিকিৎসকরা।

শনিবার নবান্নে জুনিয়র ডাক্তারদের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। জুনিয়র ডাক্তারদের দাবি মুখ্যমন্ত্রী এসএসকেএমে হুমকি দিয়েছিলেন উনি আসুন NRS, অতএব জট কাটেনি। নীলরতন সরকার মেডিকেল কলেজে চলছে ডাক্তারদের জেনারেল বডির মিটিং। সেখানেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে জুনিয়র ডাক্তারদের আন্দোলনের পরবর্তী পদক্ষেপ কী হবে।