কলকাতা: রাজ্যজুড়ে চোখ রাঙাচ্ছে করোনা। এই আবহেই আসন্ন শারদোৎসব। করোনা পরিস্থিতিতে অনেক পুজোকমিটিই এবার বাজেট কাটছাঁট করেছে। এবারের দুর্গাপুজোর মণ্ডপগুলি খোলামেলা রাখার পরামর্শ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। একইসঙ্গে মণ্ডপে একসঙ্গে অনেক দর্শক যাতে ঢুকে না পড়েন, সেই ব্যবস্থা রাখতে হবে বলে এদিন নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে জানালেন মুখ্যমন্ত্রী।

দেশের অন্য রাজ্যগুলির পাশাপাশি করোনার সংক্রমণ বেড়েই চলেছে বাংলায়। এই আবহেই শারদোৎসবের ঠাকে কাঠি পড়ল বলে। দিনকয়েক পরেই মহালয়া। যদিও এবার পুজোর এক মাস আগেই মহালায় পড়েছে। করোনা আবহে এবার দুর্গাপুজোয় আরো বেশি সতর্কতা নেওয়ার পরামর্শ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের।

সোমবার সাংবাদিক বৈঠকে তিনি জানালেন, গ্লোবাল উপদেষ্টা কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী, এবার সব পুজো মণ্ডপগুলি খোলামেলা রাখতে হবে। মণ্ডপের ভিতরে যাতে আলো-বাতাস চলাচল করতে পারে সেটা দেখতে হবে।

সোমবার নবান্নে গ্লোবাল উপদেষ্টা কমিটির সঙ্গে বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “এবার খোলামেলা মণ্ডপ তৈরির জন্য পুজো কমিটিগুলিকে অনুরোধ করব। মণ্ডপে অঞ্জলি দিতে ভিড় হয়। মণ্ডপ খোলামেলা হলে আলো-বাতাস চলাচলের জায়গা থাকবে। জীবাণু থাকলেও তা বেরিয়ে যাবে। মণ্ডপে শুধুমাত্র ভেন্টিলেশনের ব্যবস্থা থাকলেই এবার হবে না।’’

আগামী ২৫ সেপ্টেম্বর পুজো কমিটির কর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করবে রাজ্য সরকার। করোনা আবহে ঝুঁকি এড়িয়ে কীভাবে দুর্গাপুজোর আয়োজন করা যায় তা নিয়ে হবে আলোচনা। পুজো কমিটির কর্তাদের মতামত শুনবে রাজ্য সরকার।

রাজ্যের তরফেও গ্লোবাল উপদেষ্টা কমিটির সুপারিশ পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে জানানো হবে পুজো কমিটির কর্তাদের। করোনার সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া রুখতে সব দিক ধরে-ধরে আলোচনা করা হবে। সব দিক খতিয়ে দেখেই দুর্গাপুজো পরিচালনা কীভাবে হবে তা নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।