ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: সারদা চিটফান্ড তদন্তে অসহযোগিতার অভিযোগ তুলে রবিবার পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারের বাড়িতে হানা দিয়েছিল সিবিআই টিম৷ যার প্রতিবাদে ওই রাতেই রাস্তায় ধর্নায় বসেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ কিন্তু তাঁর এই আন্দোলনকে ভাল চোখে দেখছেন না ক্ষতিগ্রস্ত আমানতকারীদের একটা বড় অংশ৷

সারদা-কাণ্ড প্রকাশ্যে আসার পরে নিজেদের কষ্টার্জিত টাকা খুইয়ে অনেক এজেন্ট ও আমানতকারী আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছিলেন। আমানতকারীদের লাগাতার টাকা ফেরত চেয়ে চাপ সহ্য করতে না পেরে এলাকা ছাড়া হয়েছিলেন বহু এজেন্ট। সংস্থার কর্তারা গা ঢাকা দিয়ে অন্যত্র চলে গেলেও স্থানীয় এজেন্টরা সাধারণ মানুষের ক্ষোভ থেকে রেহাই পাননি। রাজ্য জুড়ে এই ঘটনা ঘটতে দেখা গিয়েছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের গড়ে দেওয়া শ্যামল সেন কমিশনের থেকে অনেক আমানতকারী টাকা না পেয়ে গড়ে দফায় দফায় বিক্ষোভ দেখিয়েছেন৷ এমনকি প্রতারণায় যুক্ত রাঘববোয়ালদের গ্রেফতারের দাবিতে রাজ্যে সিবিআইয়ের সদর দফতর সিজিও কমপ্লেক্স ঘেরাও করেও বিক্ষোভ দেখিয়েছেন অনেকে৷ আর সারদার চিটফান্ড নিয়ে কোনও তদন্ত হলেই আশার আলো দেখেছেন তাঁরা৷

ফাইল ছবি

কিন্তু পুলিশ কমিশনারের সমর্থনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রাস্তায় নেমে আন্দোলনে হতাশ সেইসব ক্ষতিগ্রস্ত আমানতকারীরা৷ তাদের বক্তব্য, তদন্ত তদন্তের মতোই হত৷ কেউ যদি নিরপরাধ হয় তাহলে তার তো ভয়ে কিছু নেই৷ খামোখা মুখ্যমন্ত্রী কেন এরমধ্যে নিজেকে জড়ালেন? ওনার কী স্বার্থ? মুর্শিদাবাদের বাসিন্দা সারদা সংস্থার আরও এক এজেন্ট সুবীর চক্রবর্তী বলেন, জানেন আমাদের সবসময় কত ভয়ে থাকতে হয়৷ স্ত্রীর যাবতীয় সোনার গয়না, নিজের জমিজমা বিক্রি করে কিছু আমানতকারীর টাকা মিটিয়েছি। তবে বেশির ভাগেরই টাকা এখনও বাকি। প্রায়ই বাড়ি বয়ে এসে লোকজন শাসিয়ে যাচ্ছে। বাড়িতে এসে আমাকে মারধর করছে। এমনকি আমার পরিবারকেও ছাড়ছে না। তারমধ্যে এইসব নাটক আর ভালো লাগছে না৷ নিজেদের স্বার্থ ছাড়া এরা আর কিচ্ছু বোঝে না৷

ফাইল ছবি

আমানত এজেন্ট সুরক্ষা মঞ্চের সঙ্গে যুক্ত বারুইপুরের শাহাজান মণ্ডল বলেন, রাজ্য সরকারও আমাদের টাকা দিচ্ছে না৷ তাদের অসহযোগিতায় হাইকোর্টে মামলার দিন শুধু পিছোচ্ছে৷ আমরা টাকা ফেরত চাই৷ সিবিআই তদন্ত কেন আটকানো হচ্ছে বুঝতে পারছি না৷ দিদি তদন্তে একটু সাহায্য করতেই পারেন৷ উনি কি চান না আমরা টাকাটা ফেরত পাই৷ ওই সংগঠনের সম্পাদক তারক সরকার বলেন, আমরা শুধু টাকা ফেরত চাই৷ এব্যাপারে যে দল আমাদের সাহায্য করবে আমরা তাদেরকেই স্বাগত জানাব৷

ফাইল ছবি

পুলিশ কমিশনারকে জিজ্ঞাসাবাদ করার মামলায় মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্টে সিবিআই জানিয়েছে, সারদা কাণ্ডে প্রধান অভিযুক্ত সুদীপ্ত সেনসহ প্রধান অভিযুক্তদের মোবাইলের বিকৃত কল ডিটেলস রেকর্ড (সিডিআর) সিবিআইয়ের হাতে তুলে দিয়েছেন রাজীব কুমার। সেই সিডিআর বিকৃত করার পাশাপাশি সেখান থেকে প্রয়োজনীয় তথ্যপ্রমাণ লোপাট করা হয়েছে৷ সিবিআই তাদের হলফ নামায় দাবি করেছে যে, সারদা, রোজভ্যালি এবং টাওয়ার গ্রুপের মতো চিটফান্ডের সঙ্গে রাজ্যের শাসক দলের আর্থিক লেনদেনের তথ্য তাদের হাতে এসেছে।

অভিযোগ, রাজীব কুমার রাজ্য সরকারের তৈরি করা স্পেশাল ইনভেস্টিগেশন টিম (সিট)-এর অন্যতম প্রধান তদন্তকারী হিসেবে ওই সমস্ত চিটফান্ডের বিরুদ্ধে থাকা তথ্য গোপন করেছেন। সিট তদন্তের সময় ওই চিটফান্ডের বিরুদ্ধে থাকা তথ্যপ্রমাণ নষ্টও করেছে। মঙ্গলবার দেশের শীর্ষ আদালত রাজীব কুমারকে জেরা করার নির্দেশও দিয়েছে৷ আমানতকারীরাও সুপ্রিম কোর্টের এই রায়কে স্বাগত জানিয়েছেন৷