নয়াদিল্লি: এক বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাত্‍কারে দিতে গিয়ে মোদী বলেছিলেন, ‘যেদিন এয়ারস্ট্রাইক হওয়ার কথা ছিল সেদিন হঠাত্‍ আকাশ মেঘাচ্ছন্ন হয়ে যায়। বৃষ্টি শুরু হয়। অফিসাররা চিন্তায় পড়ে যান। তখন আমি তাদের বলি, মেঘলা দিনে এয়ারস্ট্রাইক করলেই আমাদেরই সুবিধা হবে। এতে আমরা পাকিস্তানের র‍্যাডার এড়িয়ে যেতে পারব।’

তিনি আরও বলেছিলেন যে, অভিযানের দিন পরিবর্তন করা হবে বলে যখন সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছিল, তখনই তিনি বলে দিয়েছিলেন যে ওই দিনেই হবে অভিযান। আর মোদীর এই বক্তব্যের পরেই সমালোচনার ঝড় উঠেছিল বিভিন্ন মহলে৷ এবার মোদীর এই বক্তব্যকেই সমর্থন করলেন এয়ার মার্শাল রঘুনাথ নাম্বিয়ার৷

সংবাদ সংস্থা এএনআই-এর সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে কমান্ডিং ইন চিফ, ওয়েস্টার্ন এয়ার কমান্ড রঘুনাথ নাম্বিয়ার বলেন, মেঘের কারণে রাডারের সিগন্যালে সমস্যা হতে পারে৷ এদিকে রবিবার সেনারপ্রধান জেলারেল বিপিন রাওয়াতও মোদীরও বক্তব্যের সমর্থন করেন৷ তিনি বলেন, বিভিন্ন প্রযুক্তিতে বিভিন্ন রাডার কাজ করে৷ কিছুর সিথ্রু ক্ষমতা থাকে, কিছুর থাকে না৷ আবার মেঘ থাকলে কোনও কোনও রাডার সমস্যাতেও পড়তে পারে৷

বালাকোট এয়ারস্ট্রাইকের পরে মোদীর বক্তব্যে কংগ্রেসের তরফে ট্যুইট করে কটাক্ষ করা হয় মোদীকে। মির্জা গালিবের একটি উর্দু কবিতার অপভ্রংশ তৈরি করে কংগ্রেস টুইট করে, ‘পাঁচ বছর ধরে খালি জুমলা দিয়ে গেলেন, ভেবেছিলেন আকাশে মেঘ থাকবে, ধরা পড়বেন না।’ কংগ্রেস সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী টুইট করেছিলেন, নরেন্দ্র মোদী নিজেই মূর্খ। বায়ুসেনা তাঁর কাছে পরামর্শ কেন নিতে গেল সেটাই বুঝতে পারছি না। মোদীর এই বক্তব্যেই বোঝা গেল এয়ারস্ট্রাইকে পাকিস্তানের কোনও ক্ষতি হয়নি কেন।’

মোদী যদিও স্বীকার করে নিয়েছিলেন যে তিনি বিজ্ঞানটা ঠিক বোঝেন না। তিনি বলেছিলেন, ‘আমি বিজ্ঞান বুঝি না। কিন্তু এখানে একটা সুবিধাও আছে। আমার মনে হল, এই মেঘ আসলে আমাদের উপকারেই আসতে পারে। আমরা পাকিস্তানের রাডার এড়াতে পারব এর জন্য। সবাই বিভ্রান্ত ছিল, আমি বললাম মেঘ আছে তাতে কি, আপনারা এটা করুন।’

আর এবার মোদীর সেই বক্তব্যের সমর্থনেই এগিয়ে এলেন জেনারেল বিপিন রাওয়াত এবং এয়ার মার্শাল রঘুনাথ নাম্বিয়ার৷