কলকাতাঃ  ফের কলকাতায় আক্রান্ত জুনিয়র ডাক্তার। এবার ঘটনাস্থল ন্যাশানাল মেডিক্যাল কলেজে। বাইরে থেকে ছোঁড়া পাথরের আঘাতে গুরুতর আহত হন এক ডাক্তার। আহত ডাক্তারের নাম অভিষেক সাউ। এরপরেই নতুন করে উত্তেজনা ছড়িয়েছে ন্যাশানাল মেডিক্যাল কলেজে। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে সরকারি হাসপাতালের মূল গেট। এমনকি আগামীকাল শনিবার থেকে হাসপাতালের মূল গেট এবং ইমারজেন্সি সম্পূর্ণভাবে বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন জুনিয়র ডাক্তাররা। ফলে নতুন করে পরিস্থিতি ফের জটিল হতে চলেছে বলে মনে করছে ওয়াকিবহালমহলের একাংশ।

এনআরএস-কান্ডের আঁচ কলকাতা সহ সমস্ত সরকারি হাসপাতালে পড়েছে। ইতিমধ্যে গনইস্তফার পথে ডাক্তাররা। এই অবস্থায় গত কয়েকদিন ধরে উত্তেজনা ছিল ন্যাশানাল মেডিক্যাল কলেজে। সেখানকার জুনিয়র ডাক্তাররাও পর্যাপ্ত নিরাপত্তার দাবিতে আন্দোলন চালাচ্ছিলেন। হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সামনে আজ শুক্রবার সকাল থেকে অবস্থান-বিক্ষোভ করছিলেন চিকিত্সকরা। সেই সময় হাসপাতালের মেন গেটের সামনে দিয়ে এসে কয়েকজন হামলা চালায় বলে অভিযোগ। আন্দোলনকারী ডাক্তারদের উদ্দেশ্যে ইট, পাথর ছোঁড়া হয় বলে অভিযোগ।

ছোঁড়া পাথরের আঘাতে অভিষেক গুরুতর আহত হন বলে জানা গিয়েছে। তিনি চতুর্থ সিমেস্টারের ছাত্র। এই ঘটনা নিয়ে পরে ডাক্তারির পড়ুয়া ফেসবুকে পোস্ট করেন। তিনি লেখেন, তাঁরা জরুরি বিভাগে চিকিত্সার কাজে নিযুক্ত ছিলেন। কিন্তু এই ঘটনার পর তাঁরা পরিষেবা বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয়েছেন।

ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়েছে ন্যাশানাল মেডিক্যাল কলেজে।

অন্যদিকে, গত কয়েকদিন ধরে লাগাতার কর্মবিরতিতে জুনিয়র ডাক্তাররা। এই অবস্থায় জুনিয়রদের পাশে দাঁড়িয়েছেন সিনিয়র ডাক্তাররাও। স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকে একেবারে শিকেয় তুলে গণহারে ইস্তফা দিচ্ছেন ডাক্তাররা। আরও জটিল হচ্ছে পরিস্থিতি। এই অবস্থায় সমাধান খুঁজতে ইতিমধ্যে নবান্নে তিন সিনিয়র ডাক্তারদের ডেকে পাঠিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নবান্নে চলছে জরুরি বৈঠক।