কলকাতা: এবার করোনায় মৃত্যু এক সিভিক ভলান্টিয়ারের৷ ইস্ট ট্রাফিক গার্ডে কর্মরত ছিলেন ওই সিভিক ভলান্টিয়ার৷ তার করোনা উপসর্গ দেখা দেওয়ায় নমুনা পরীক্ষা করা হয়৷ সেই রিপোর্ট পজিটিভ আসে৷ তারপর ওই সিভিক ভলান্টিয়ারকে ভর্তি করা হয় বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে৷ গতকাল সেখানেই তাঁর মৃত্যু হয়৷

এর আগে করোনা আক্রান্ত হয়ে শিয়ালদা ট্রাফিক গার্ডের এক কনস্টেবলের মৃত্যু হয়৷ ওই কনস্টেবল কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের ভেন্টিলেশনে ছিলেন৷ করোনা আক্রান্ত হয়ে তিনি ওই হাসপাতালে ভর্তি হন৷ তবে করোনার সঙ্গে কিডনির সমস্যাও ছিল তার৷ শেষ পর্যন্ত হাসপাতালেই তার মৃত্যু হয়৷

করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় কলকাতা পুলিশের এক কনস্টেবলের৷ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যু হয় মাঝবয়সী ওই পুলিশ কনস্টেবলের।

লালবাজার সূত্রের খবর ছিল,ওই পুলিশ কনস্টেবল সাউথ ডিভিশনের রিজার্ভ অফিসে পোস্টিং ছিলেন। সেখান থেকে তাকে ডেপুটেশনে শেক্সপিয়ার সরণি থানায় ডিউটি দেওয়া হয়েছিল।

কলকাতা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার (সদর) শুভঙ্কর সিনহা সরকার ওই কনস্টেবলের করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর কথা স্বীকার করেছেন।

শিলিগুড়ির ফাসিঁদেওয়া থানা এলাকায় বাড়ি ওই পুলিশ কনস্টেবলের। স্ত্রী অসুস্থ থাকার জন্য গত ২৮ মে কলকাতা থেকে বাসে করে বাড়ি যান। ১ জুন শিলিগুড়ি থেকে ফিরে ডিউটিতে যোগ দেন। সেদিন তাঁর শরীরে কোনও উপসর্গ না থাকলেও থানার অন্যান্য পুলিশকর্মীদের সঙ্গেই তার কোভিড-১৯ টেস্ট হয়।

পরদিনই কিছু উপসর্গ দেখা দেয় তার। টেস্টের পর দিনই জ্বর আসায় তাঁকে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ৩ জুন টেস্ট রিপোর্ট এলে জানা যায় ওই পুলিশ কনস্টেবল করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। চিকিৎসা শুরু হয় তার। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তিনি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ