ফাইল ছবি

নয়াদিল্লি: করোনার কারণে কিছুদিন আগে CBSE-র দশম শ্রেণির পরীক্ষা বাতিল করা হল। পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষা। এবার সেই একই সিদ্ধান্ত নিল CISCE । তবে এক্ষেত্রে দশম ও দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষা বাতিল করা হয়নি। পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে। জুন মাসে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

দেশে ক্রমাগত খারাপ হচ্ছে করোনা পরিস্থিতি। তাই CISCE ঘোষণা করেছে দশম ও দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষা এ বছর পিছিয়ে দেওয়া হবে। তবে এর মধ্যে দশম শ্রেণির লিখিত পরীক্ষা হবে অপশনাল। ১ জুন এই নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তখন যদি পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয় তবেই পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। গত বছর CISCE করোনার কারণে বোর্ডের পরীক্ষা বাতিল করেছিল। পড়ুয়াদের তিনটি প্যারামিটারের ভিত্তিতে মূল্যায়ন করা হয়েছিল। প্রতিটি বিষয়ের প্র্যাকটিকাল, ইন্টারনাল অ্যাসেসমেন্টের ভিত্তিতে নম্বর দেওয়া হয়েছিল। এবারও মনে করা হচ্ছে ওই একই নিয়ম কার্যকরী হবে। তবে কাউন্সিলের পক্ষ থেকে এখনও কিছু জানানো হয়নি। এ বছর এখনও পর্যন্ত দশম শ্রেণির কোনও পরীক্ষা হয়নি। দ্বাদশ শ্রেণির মাত্র ২টি পরীক্ষা হয়েছে।

এদিকে করোনার কথা মাথায় রেখে CBSE-র দশম শ্রেণির পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে। পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষা। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আসার পর পরীক্ষা বাতিলের দাবি তুলেছিল একাধিক রাজ্য়ের পড়ুয়ারা। এ নিয়ে বুধবার শিক্ষামন্ত্রী রমেশ পোখরিয়ালের সঙ্গে বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন উচ্চ পদস্থ অফিসাররা। এরপরই একটি টুইটে রমেশ পোখরিয়াল জানান, ৪ মে থেকে ১৪ জুনের মধ্যে সেন্ট্রাল বোর্ড অফ সেকেন্ডারি এডুকেশনের (CBSE) দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিল। তা পিছিয়ে গিয়েছে ১ জুন এই সম্পর্কে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। ছাত্রছাত্রীদের ১৫ দিন আগে পরীক্ষার ব্যাপার জানিয়ে দেওয়া হবে।

দশম শ্রেণির ক্ষেত্রে বোর্ডের মানদণ্ড অনুযায়ী ফলাফল প্রকাশ করা হবে। যে সপ পড়ুয়া তাদের ফলাফল নিয়ে সন্তুষ্ট থাকবে না তাদের পরীক্ষার অনুমতি দেওয়া হবে। তবে সেক্ষেত্রে তাদের উপর কিছু শর্ত আরোপ করা হবে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.