দারুচিনিকে সকলেই মশলা হিসেবেই চেনেন৷ এটি মুলত গাছের ছাল৷ কিন্তু এই মশলা যে বিভিন্ন ব্যথার উপশমকারী উপাদান তা অনেকেই জানেন না৷ বিভিন্ন প্রকার ব্যথায় এটি ব্যবহার করলে ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব৷ সে বিষয়েই আপনাদের জন্য রইল কিছু তথ্য৷

আর্থরাইটিসের ব্যথা কমাতে এক কাপ গরম জলে মধ্যে দু চামচ মধু আর এক চামচ দারচিনি গুঁড়ো মিশিয়ে প্রতিদিন সকাল ও সন্ধ্যাবেলা খান । ১ সপ্তাহ নিয়মিত খেলে উপকার পাবেন৷

শরীরের কোনও হাড়ের জয়েন্টে ব্যথা হলে উষ্ণ জলের মধ্যে সম পরিমাণ মধু ও দারুচিনি গুঁড়ো মিশিয়ে পাতলা পেস্ট তৈরি করুন।  এই মিশ্রণ মালিশ করে করে ব্যথা  জায়গায় লাগান।  ব্যথা নিরাময় হবে।

মাড়িতে ব্যথা হলে বা মাড়ি ফুলে গেলে দারুচিনির এসেনশিয়াল অয়েল লাগিয়ে দিন। ব্যথা কমে যাবে।  দীর্ঘস্থায়ী বাতের ব্যথায় দারুচিনি গুঁড়ো টনিকের মতো কাজ করে।  প্রতিদিন  জল বা দুধের সঙ্গে মিশিয়ে আধা চা চামচ করে সেবন করুন৷

অ্যাসিডিটি বা অন্য কোনও সাধারণ কারণে পাকস্থলীতে ব্যথা হলে গরম জলের সঙ্গে মধু ও তার অর্ধেক পরিমাণ দারুচিনি মিশিয়ে পান করুন। ব্যথা নিরাময় হবে।

ঠাণ্ডা লেগে গলা ব্যথা হলে এক চা চামচ মধুর সঙ্গে চা চামচের চার ভাগের এক ভাগ দারুচিনি গুঁড়ো দুধের সঙ্গে মিশিয়ে সামান্য গরম করে পান করুন। কয়েকবার খেলে গলা ব্যথা কমে যাবে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I