কলকাতা: উৎসবমুখর নন্দন চত্বর। চলছে ২৫তম কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব। শহরের বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহে দেখানো হচ্ছে দেশ-বিদেশের নানা ভাষার ছবি। নন্দন চত্বর থেকে শুরু করে শহরের বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহ এখন সিনেমাপ্রেমীদের দখলে। জেলা থেকেও নন্দনে আসছেন সিনেমাপ্রেমীরা।

পাশাপাশি একতারা মঞ্চে চলছে সিনেমা বিষয়ক আড্ডা। আড্ডায় অংশ নিচ্ছেন পরিচালক থেকে অভিনেতা সকলেই। বুধবার সন্ধ্যার সিনে আড্ডায় চাঁদের হাট বসেছিল। উপস্থিত ছিলেন রাজ চক্রবর্তী, অরিন্দম শীল, শুভশ্রী, শ্রাবন্তী, সোহম, আবীর, চিরঞ্জিৎ, পাওলি দাম-সহ আরও অনেকে। এদিনের আড্ডার বিষয়– ‘বিগ বাজেট ব্লগবাস্টার নাকি স্মল বাজেটে সুপারহিট?’

সিনেমা বিষয়ক এই আড্ডা দেখতে উপচে পড়ে দর্শকের ভিড়। আড্ডার সঞ্চালনার দায়িত্বে ছিলেন বিশিষ্ট সাংবাদিক গৌতম ভট্টাচার্য। বিষয়ী আড্ডায় পাওলি দাম বলেন, “অডিয়েন্সের এক্সেপটিবিলিটি শেষ কথা। দর্শক বাজেট জেনে ছবি দেখতে যায় না। সিনেমার বিষয়বস্তু মাথায় রেখেই সিনেমা দেখেতে যায়। কনসেপটের ওপর নির্ভর করে বাজেট তৈরি হয়।”

পরিচালক তথা অভিনেতা অরিন্দম শীল বলেন, “ছবির কাজে বিদেশে যেতে হয় অনেক সময়। সিনেমার স্বার্থে ফ্লাইটে বিজনেস ক্লাসে না গিয়ে ইকনমিক ক্লাসে যাব। যাতে কিছুটা পয়সা বাঁচিয়ে ছবির অন্য খাতে ব্যবহার করা যায়। সেক্ষেত্রে প্রডিউসারের টাকা কিছুটা হলেও বাঁচবে। এমন কিন্তু নয় যে, সব বিগ বাজেটি ব্লগবাস্টার। বিশ্ব সিনেমার ক্ষেত্রে খুব কম বাজেটের ছবিও ব্লগবাস্টার হয়েছে।”

নন্দন চত্বরে জমে উঠেছে কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসব। উৎসবের সিকি শতক উপলক্ষে আলো ঝলমলে গোটা প্রাঙ্গণ। এবারের থিম কান্ট্রি জার্মানি। বুধবার দুপুরে নন্দনে ভিড় টেনেছে ভুটানি ছবি Lunana. প্রতিদিন প্রকাশিত হচ্ছে বুলেটিন ‘ফেস্টিভ্যাল ডায়েরি’। সম্পাদনার দায়িত্বে আছে অভীক মজুমদার। উৎসবের সমাপ্তি ১৫ নভেম্বর।