স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: সংগ্রামপুরের পর এবার বিষমদ খেয়ে মৃত্যু শান্তিপুরে৷মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে সাত৷রাজ্য সরকার মৃতদের পরিবার পিছু দু’লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা ঘোষনা করেছে৷বিষমদ কাণ্ডে আবগারি অফিসারসহ ১১জন কে সাসপেন্ড করেছে৷মৃত্যুর তদন্ত শুরু করেছে সিআইডি৷বিষমদ কারবারি একজনকে গ্রেফতার করেছে সিআইডি৷

সূত্রের খবর, নদিয়ার শান্তিপুরে বিষ মদ খেয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হল সাতজন৷অসুস্থ প্রায় ৩০ জন৷বেশ কয়েকজন কালনা মহকুমা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন৷গত মঙ্গলবার থেকেই অসুস্থ হতে শুরু করেন শান্তিপুরের নৃসিংহপুর এলাকার বাসিন্দারা৷সেদিন রাতেই মৃত্যু হয় একজনের৷মৃতদের পরিবারের দাবি বিষ মদ খেয়েই মৃত্যু হয়েছে৷এরপরই নড়েচড়ে বসে প্রশাসন৷তিনজন আবগারি অফিসার ও আট জন কনস্টেবলসহ ১১জন কে সাসপেন্ড করা হয়েছে৷ এদের মধ্যে রয়েছেন শান্তিপুর সার্কেলের আবগারির ওসি ও রানাঘাট সার্কেলের ডেপুটি আবগারি কালেক্টরও৷

আরও পড়ুন : অনিল কাপুরের ছবির ডায়লগ বলে সাসপেন্ড পাক পুলিশ অফিসার

বিধানসভায় বুধবার রাজ্যের অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র সংবাদ মাধ্যমকে জানান, লোকের মুখে শোনা যাচ্ছে ভিন রাজ্য থেকে আসছে এই মদ৷বিশেষ করে বিহার ঝাড়খন্ডের কথা শোনা যাচ্ছে৷ সেখান থেকে আসা মদেই এই বিপত্তি কিনা তা দেখা হচ্ছে৷ মদে কী মেশানো ছিল তা পরীক্ষা করে দেখা হবে৷যদিও বিরোধীরা বলছেন অন্য কথা৷বিজেপির কেন্দ্রীয় সম্পাদক রাহুল সিনহা জানান, চোলাই মদ বন্ধ না করে চোলাই মদের বিমা করে দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী৷

কংগ্রেস সাংসদ প্রদীপ ভট্টাচার্য জানান, ভাটিখানা না ভেঙ্গে সেখান থেকে পুলিশ ও নেতারা রীতিমত তোলা তুলছে৷ বিষমদ যারা তৈরি করছে তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসন কোনও ব্যবস্থা নিচ্ছে না৷

আরও পড়ুন : সুখবর: বছরের শেষে প্রচুর চাকরির সুযোগ দিচ্ছে এই সংস্থা

শান্তিপুরের বিষমদ কান্ডের তদন্তভার তুলে দেওয়া হয়েছে সিআইডির হাতে৷তদন্তে নেমে ইতিমধ্যেই একজনকে গ্রেফতার করেছে সিআইডি৷এর আগে ২০১১ সালের ডিসেম্বর মাসে দক্ষিণ ২৪ পরগানার উস্তি থানার সংগ্রামপুরে বিষ মদ খেয়ে কয়েকশ মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়েন৷ এদের মধ্যে ১৭৩ জনের মৃত্যু হয়েছিল৷

ওই ঘটনায় অভিযুক্ত হিসাবে নাম উঠে এসেছিল নুর ইসলাম ফকির ওরফে খোঁড়া বাদশার৷ঘটনায় মোট ১১ জনের বিরুদ্ধে উস্তি থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছিল৷এদের বিরুদ্ধে অনিচ্ছাকৃত খুন, ষড়যন্ত্র সহ বেঙ্গল এক্সাইজ অ্যাক্টেও মামলা রুজু হয়েছিল৷ অভিযুক্ত চারজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের নির্দেশ দিয়েছে আলিপুর আদলত৷ এবার নদিয়ার শান্তিপুরে বিষমদ কান্ডে দোষীদের কী শাস্তি হয় সেদিকে তাকিয়ে রাজ্যবাসী৷